ভবনের জন্য জমি খুঁজছে বিজিএমইএ

তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সংগঠন বিজিএমইএর জন্য নতুন ভবন নির্মাণে রাজধানীর উত্তরা এবং পূর্বাচলে প্লট দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির প্রাক্তন সভাপতি ও এফবিসিসিআইয়ের সহসভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

রোববার রাজধানীর মতিঝিলে ফেডারেশন ভবনে কেনিয়ার বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমরা প্লট দেখছি। আমাদের বিজিএমইএ নেতারা এ বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছেন। তারা উত্তরা এবং পূর্বাচলে জমি দেখছেন।’

বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে আদালতের রায়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা স্বাধীন দেশ। এখানে স্বাধীন বিচারব্যবস্থা আছে। এটিকে আমরা শ্রদ্ধা করি। তবে এর জন্য আমরা যাতে প্রয়োজনীয় সময় পাই, সেটা সক্রিয় বিবেচনা করা উচিত। আমরা আরেকটা বিল্ডিং করে সেখানে সরে যাওয়ার মতো প্রয়োজনীয় সময় চেয়েছি, যা আমরা পাব বলে আশা করি। এ ব্যাপারে সরকার আমাদের সক্রিয় সহযোগিতা করছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের মনে অনেক দুঃখ থাকার পরেও যেহেতু প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে সবসময় সার্বিক সহযোগিতা দিয়েছেন, তাই আমরা আশাবাদী অন্যত্র সরে যাওয়ার জন্য আমরা প্রয়োজনীয় সময় পাব। মহামান্য আদালত বিষয়টিকে বিবেচনা করবেন। আমাদেরকে প্রয়োজনীয় সময় দেবেন। আমাদের ইন্ডাস্ট্রি এমন কোনো কাজ করেনি, যে কারণে এটিকে জাতীয়ভাবে ভিলেনে পরিণত করা হবে। আমি আশা করি এই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হবে।’

আদালতের রায়কে অবমাননা করবেন না, উল্লেখ করে ব্যবসায়ী ওই নেতা বলেন, ‘আমরা আমাদের পবিত্র সংগঠনকে বিতর্কিত করতে চাই না। আদালতের রায়কে মেনে নিয়েই আমরা অন্যত্র সরে যাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা আশা করি, এটার একটা সুন্দর সমাধান পাব।’

এর আগে কেনিয়ার বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠকে এফবিসিসিআইয়ের সহসভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমাদের দেশে এখন অনেক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড হচ্ছে। সরকার ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল করতে যাচ্ছে। কেনিয়া এখানে বিনিয়োগ করতে পারে।’

বৈঠকে কেনিয়ার শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্রধান সেক্রেটারি জুলিয়াস করির বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। এ সময় এফবিসিসিআইয়ের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

বিজিএমইএ ভবন অবিলম্বে ভেঙে ফেলতে হাইকোর্টের দেওয়া রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে (রিভিউ) করা আবেদন খারিজ হয়েছে আপিল বিভাগে। ফলে এখন বিজিএমইএ ভবন ভাঙতেই হবে। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের তিন সদস্যের বেঞ্চ রোববার এই রিভিউ আবেদনের ওপর শুনানি নিয়ে তা খারিজ করেন।

বিজিএমইএ ভবন অন্যত্র সরাতে কত দিন সময় লাগবে, তা জানিয়ে আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে একটি আবেদন দিতে বলেছেন আদালত। ওই দিন আদালত পরবর্তী আদেশ দেবেন।

You Might Also Like