ব্লগার নিলয়ের কথিত বউ আশা মনি যাননি শেষকৃত্যে, তাকে ঘিরেই বাড়ছে রহস্য !

পিরোজপুরের টোনা ইউনিয়েনের চলিশা গ্রামে পারিবারিক শ্মশানে শনিবার রাত সাড়ে ১২টায় ব্লগার নিলয় নীলের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। তবে শেষকৃত্যে উপস্থিত ছিলেন না নিলয়ের কথিত বউ আশা মনি। আর নিলয়ের পরিবার আশা মনিকে নিলয়ের বউ হিসেবে স্বীকার না করায় জটিলতা এড়াতেই আশা মনি শেষকৃত্যে যাননি বলে জানা গেছে।
নিলয়ের চাচা মনিশংকর জানান, ‘নিলয় বিয়ে করেছে বা তার স্ত্রী আছে এমন কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই। তাই আমরা চাইনি বউ দাবি করে কেউ নিলয়ের শেষকৃত্যে থাকুক।’
তবে আশা মনির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিনি ‘অসুস্থ’ থাকায় শেষকৃত্যে যাননি। শুক্রবার নিলয় হত্যার পর রাতেই আশা মনি ঢাকায় তার এক আতœীয়ের বাসায় চলে যান। সেখান থেকে তিনি এখন তার বাবার বাড়িতে চলে গেছেন বলে জানা গেছে।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গ থেকে নিলয়ের লাশ গ্রহণ করেন আরেক চাচা নির্মল চট্টোপাধ্যায়। তিনিই শনিবার রাতে নিলয়ের মরদেহ পিরোজপুরে নিয়ে যান। আর রাতেই শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। তিনি বলেন, ‘আমি গণমাধ্যমে নিলয়ের কথিত বউ থাকার কথা শুনেছি। কিন্তু ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাদের পক্ষ থেকে কেউ আসেননি। এমন কি আশা মনি নামে যিনি নিলয়ের স্ত্রী পরিচয় দিয়েছেন তার পরিবারের পক্ষ থেকেও কেউ আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। আমি শুনেছি তিনি তার এক আত্মীয়ের বাসায় আছেন।’
এদিকে আশা মনিকে নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত আছে। পরিবারে কেউ স্বীকার করছেন না যে নিলয় বিবাহিত ছিলেন। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে আশা মনির সংশ্লিষ্টতা আছে বলেও সন্দেহ করছেন তারা।
নিলয়ের মাসি সাথী চক্রবর্তী বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি না নিলয় বিবাহিত ছিল। সে যদি বিবাহিত স্ত্রী হতো তার গায়ে কোনো আঁচড় লাগলো না। একটু রক্তের দাগ লাগলো না! এটা কি করে হয়? পুলিশ যখন ওর লাশ ওই বাড়ি থেকে নিয়ে যায় তখনও তো ওই মহিলা কাছে যায়নি।’
তিনি আরো বলেন, ‘এ খুনের সাথে ওই মহিলা (আশা মনি) জড়িত থাকতে পারে। নিলয়ের হত্যার আগে পরে আমাদের ফোনও তো দিতে পারতো।’
নিলয়ের ছোট কাকি শ্যামা দত্ত বলেন, ‘আমাদের ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার। পরিকল্পিতভাবেই আমাদের ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। যে পুলিশ নিরাপত্তা দিতে পারেনি, আমাদের ছেলের অভিযোগও নেয়নি, তাদের বলেন, ওই মহিলাকে (কথিত বউ আশা মনি) গ্রেপ্তার করতে। পরিবারের একমাত্র ছেলেকে আমরা তো আর ফিরে পাবো না। সরকারের কাছে দাবি ন্যায় বিচারটুকু যেন আমরা পাই।

You Might Also Like