সরকার দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিয়ে বৈধ ক্ষমতা অবৈধভাবে ব্যবহার করে : সুজন

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, সরকার দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিয়ে বৈধ ক্ষমতা অবৈধভাবে ব্যবহার করে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা আনতে সক্ষম হয়েছে। যাতে করে বিরোধী দল মাঠে না থাকতে পারে তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে “বাংলাদেশ গণতন্ত্রের পরিস্থিতি : কিছু ভাবনা” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

বদিউল আলম বলেন, দেশে রাজনৈতিক দলগুলোর শক্তি নির্ধারিত হয় শক্তি দিয়ে। রাজপথে কে কতটুকু ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারে এটা দিয়ে বিচার করা হয় কোন দল কতটুকু শক্তিশালী। আর সরকারি দল মনে করে বিরোধীদের দমন করতে পারলে দেশে স্থিতিশীলতা আনতে সক্ষম হবে। কিন্তু পরিণতিতে তা হচ্ছে না।

নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নির্বাচন মানে চয়েজ, চয়েজ মানে ভোট। কিন্তু গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ১৫৩ প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছে। এতে করে ৫৩ শতাংশ ভোটার ভোট দেওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছে। আর ১৪৭ আসনে যে নির্বাচন হয়েছে, সেখানে নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী ১ কোটি ৭২ লাখ ভোটার ভোট দিয়েছে। তার মানে, হিসেব করে দেখা যায় ১৮ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। আর ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের হিসেব অনুযায়ী ৩০ শতাংশ।

তিনি বলেন, নিবন্ধিত ৪১টি দলের মধ্যে ১২টি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। তার মানে ২৯ শতাংশ নিবন্ধিত দল নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। এতে করে সাধারণ মানুষ ভোটের অধিকার পেল কিভাবে? যেখানে নির্বাচনে মানুষ ভোটই দিতে পারল না সেখানে গণতন্ত্র কতটুকু আছে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়।

এর আগে রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. রওনক জাহান শিরোনামের ওপর এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। সেখানে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের পরিস্থিতি বিষয়ে তার মতামত প্রকাশ করেন।

সুজনের সভাপতি এম হাফিজউদ্দিন খানের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, প্রকোশলী মিজবাহ আলী, সাবেক উপসচিব শাহাদাত আলী, রাজনীতিবীদ হুমায়ুন কবির হিরু প্রমুখ।

You Might Also Like