‘বিল ক্লিনটন ধর্ষণ করে, হিলারি হুমকি দেয়’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের দ্বিতীয় বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়েছে রোববার রাতে।

তবে বিতর্কের ঠিক ৯০ মিনিট আগে ট্রাম্প বিল ক্লিনটনের যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এমন চার নারীকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন। সেন্ট লুইসে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

এই চার নারী হলেন– জুয়ানিতা ব্রডরিক, ক্যাথি শেলটন, পাওলা জোন্স ও ক্যাথলিন উইলি।

ট্রাম্প তাদেরকে এমন এক সময় হাজির করলেন যখন ১১ বছর আগের তার একটি অডিও রেকর্ড নিয়ে বেশ বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। ওই অডিও রেকর্ডে ট্রাম্পকে নারীদের সম্পর্কে নোংরা ও অশ্লীল কথা বলতে শোনা যায়।

জুয়ানিতা ব্রডরিক আরকানসাসের একটি নার্সিং হোমের প্রশাসক হিসেবে আছে। তিনি দাবি করেন, বিল ক্লিনটন আরকানসাসের অ্যাটর্নি জেনারেল থাকাকালীন তাকে ধর্ষণ করেন।

তিনি বলেন, ‘কর্ম শব্দের চেয়ে অনেক বেশি প্রতিক্রিয়াশীল। ট্রাম্প নারীদের নিয়ে কেবল অশ্লীল মন্তব্য করেছেন। কিন্তু বিল ক্লিনটন আমাকে ধর্ষণ করেছেন। আর হিলারি ক্লিনটন আমাকে হুমকি দিয়েছেন। আমি মনে করি না বিল কিংবা হিলারি ক্লিনটনের অপরাধের সঙ্গে ট্রাম্পের অপরাধের কোনো তুলনা চলে।’

ক্যাথি শেলটন বলেন, ‘আমার বয়স যখন মাত্র ১২ বছর ছিল তখন বিল ক্লিনটন আমাকে ধর্ষণ করেন। হিলারি বলেন যে, তিনি নারী ও শিশুদের পক্ষে। কিন্তু ১২ বছর বয়সে আমি যখন ধর্ষণের শিকার হই তখন হিলারি আদালতে বিল ক্লিনটনকে সমর্থন করেন এবং আমাকে ভারসাম্যহীন যৌন উদ্দীপক শিশু হিসেবে অভিহিত করেন।’

এর আগে শনিবার এক টুইটার বার্তায় শেলটন বলেন, ‘আমিই হয়তো হিলারির প্রথম নারী শিকার। তিনি আমার জীবন ধ্বংস করে দিয়েছেন। আমাকে দোষারোপ করে ধর্ষককে রক্ষা করেছেন। তখন আমার বয়স ছিল মাত্র ১২ বছর। অথচ তিনি আমার প্রতি উপহাস করেছেন।’

বিল ক্লিনটনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির মামলা করেন পাওলা জোন্স। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিল ক্লিনটন তাকে ৮ লাখ ডলার দেন। ট্রাম্পকে সমর্থন করে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি সবার উচিত তাকে (ট্রাম্প) ভোট দেওয়া। তিনি একজন ভালো লোক। হিলারি কিংবা অন্যান্য লোকেরা তার সম্পর্কে যেমন বলছেন, তিনি আসলে তেমন লোক নন।’

ক্যাথলিন উইলি অভিযোগ করেন, ১৯৯৩ সালে তিনি তহবিল সংগ্রাহক ও হোয়াইট হাউসের স্বেচ্ছাসেবক ছিলেন। একটি বেতনভুক্ত চাকরির জন্য বিল ক্লিনটনের কাছে যান। সে সময় ওভাল অফিসের কাছাকাছি একটি রুমে বিল ক্লিনটন তার শরীরের স্পর্শকাতর অংশে হাত দেন।

তিনি বলেন, ‘আমি বিল ক্লিনটনের সঙ্গে একটি একান্ত বৈঠকে ছিলাম। হঠাৎ করে বিল ক্লিনটন আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে আমার মুখে চুমু খান, আমার স্তনে হাত দেন এবং আমার হাত তার দুই পায়ের মাঝে স্থাপন করেন। আমি হতবুদ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম আর ভাবছিলাম, তিনি কী করছেন এসব?’

উইলিকে এই নির্বাচনে ট্রাম্পের চিয়ারলিডার হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য, এই চার নারীই আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দিয়ে জয়ী করতে বলেন।

You Might Also Like