বাংলাদেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে পারে আল-কায়েদা

আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদা ভারত ও মিয়ানমারে কাজ করতে বাংলাদেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে পারে। বাংলাদেশের ভূখণ্ডে অস্ত্র ও গোলাবারুদ মজুদ করে তারা সেগুলো সরবরাহ করতে পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ সীমান্ত ব্যবহার করতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এর সাবেক কর্মকর্তা ব্রুস রিডেল।

শুক্রবার ভারতের অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘অন ইন্ডিয়া’  এ খবর দিয়েছে।

সিআইএ এর সাবেক  কর্মকর্তা ব্রুস রিডেলের বরাত দিয়ে পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আল-কায়েদার উদ্দেশ্য হলো- ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ‘ইসলামের দুশমন’ হিসেবে তুলে ধরা।

ভারতের বিরুদ্ধে তাদের জেহাদ কর্মসূচিতে এটা একটা উল্লেখযোগ্য দিক। তাই নয়া দিল্লির উচিত, সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী যুদ্ধে আরো কঠোর অবস্থা নেয়া।

ব্রুস রিডেলের  মতে, আয়মান অল জাওয়াহিরি ভারতের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণার যে পরিকল্পনা সম্প্রতি ঘোষণা করেছেন, তাকে হালকাভাবে নিলে চলবে না। শুধু যে নাশকতামূলক কাজই ওরা করবে তা নয়, নরেন্দ্র মোদিকে ‘ইসলামের দুশমন’ প্রতিপন্ন করতে নানা চাল চালবে।  এর উদ্দেশ্য হলো, ভারতের মুসলিম তরুণদের মন বিষিয়ে দেয়া। তাতে তারা দলে দলে আল-কায়েদায় ভিড়ে। তাই ভারতে তাদের শাখা খুলতে এত উঠেপড়ে লেগেছে আল-কায়েদা।

ওই সিআইএ কর্মকর্তা আরো বলেন, কাশ্মীর, গুজরাট আর আসামে বিশেষ নজর রয়েছে আল কায়েদার। পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ সীমান্ত দিয়ে তারা অস্ত্রশস্ত্র, গোলাবারুদ চোরাচালান করতে পারে।

আফগানিস্তান থেকে মিয়ানমার পর্যন্ত নিরঙ্কুশ শরিয়ত শাসন কায়েম করাই আল কায়েদার লক্ষ্য। তার দাবি, ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুর পর জাওয়াহিরি এখন আল কায়েদার প্রধান কর্তা।

সাবেক ওই সিআইএ অফিসারের মতে, আমেরিকার সঙ্গে আরো নিবিড় বোঝাপড়া করতে হবে ভারতকে। কারণ সন্ত্রাসবাদী-বিরোধী লড়াই ভারতের একার পক্ষে চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বৃহস্পতিবার বলা হয়েছিল, আল-কায়েদার হুমকি এমনই কিছু গুরুত্বপূর্ণ নয়। ওদের যেটুকু অস্তিত্ব আছে, তাও মুছে ফেলতে সক্ষম হবে আমেরিকা। কিন্তু ব্রুস রিডেলের মতে, এ কথা শুনে ভারতের আহ্লাদিত হওয়ার কারণ নেই। নিজেদের অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা নিজেরাই বুঝে নিক ভারত।

You Might Also Like