বরগুনায় হত্যা মামলায় বাবা-ছেলের ফাঁসি, শাশুড়ি ও পুত্রবধূর যাবজ্জীবন

বরগুনায় গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে বাবা ও ছেলেকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। সেই সাথে শাশুড়ি ও পুত্রবধূকে দেয়া হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত আসামিরা হচ্ছেন, বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার তাফালবাড়িয়া গ্রামের খলিলুর রহমান ও তার ছেলে ইসমাইল হোসেন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্তরা হচ্ছেন, খাদিজা বেগম ও তার পুত্রবধূ খুশী বেগম।

বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. নজরুল ইসলাম রোববার দুপুরে এ রায় ঘোষণা করেন। বরগুনার পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এডভোকেট ভুবন চন্দ্র হাওলাদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী এপিপি এডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল জানান, পাথরঘাটার তাফালবাড়িয়া গ্রামের খলিলুর রহমান একই গ্রামের আবদুর রশিদের মেয়ে তাজিনূর বেগমকে দ্বিতীয় বিয়ে করেছিল। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ দেখা দেয়। বিগত ২০০৬ সালে কোনো এক রাত ৮টার দিকে খলিলুর রহমান, তার প্রথম স্ত্রী খাদিজা বেগম, তাদের ছেলে ইসমাইল হোসেন ও পুত্রবধূ খুশী বেগম একত্রিত হয়ে তাজিনূর বেগমকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ ব্যাপারে তাজিনূরের বাবা আবদুর রশিদ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছিলো। সেই মামলায় রোববার দুইজনকে ফাঁসির আদেশ ও দুইজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। রায় ঘোষণার সময় ইসমাইল হোসেন, খাদিজা বেগম ও খুশী বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। খলিলুর রহমান জামিনে গিয়ে পলাতক রয়েছে।

আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এডভোকেট তোফাজ্জেল হোসেন কিসলু তালুকদার।

তিনি জানান, তারা ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তারা উচ্চ আদালতে আপিল করবেন। রায়ের পরেই তিন আসামিকে বরগুনা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

You Might Also Like