বন্য হাতির তাণ্ডব থেকে রক্ষা করবে উট!

হাতির তান্ডবে যখন গ্রামবাসী অতিষ্ঠ, হাতিকে জঙ্গলে পাঠাতে নাকানিচুবানি খাচ্ছেন বনকর্মীরা। তাই হাতি তাড়াতে উট কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের ঝাড়খন্ডের বন দফতর! হাতির হানায় দিশেহারা হয়েই এই অভিনব উদ্যোগ। কারণ, হাতি তাড়ানোর নানা চেষ্টা ব্যর্থ হলেও সামনে স্রেফ উট দেখেই হাতিকে পালাতে দেখা গেছে।

গত জানুয়ারিতে ঝাড়খন্ডের খুঁটি জেলায় একটি গ্রামে ঢুকে ১৪টি হাতি তান্ডব চালাচ্ছিল। কিছুতেই তাদের তাড়ানো যাচ্ছিল না। সেই সময় ওই গ্রামের এক বাসিন্দার দুটো উট হঠাৎ হাতির দলটির সামনে এসে পড়ে। উট দুটিকে দেখে গ্রামের মানুষকে অবাক করে দিয়ে মুহূর্তেই জঙ্গলের দিকে পালিয়ে যায় হাতির দল।

কয়েক দিন আগে ওই রাজ্যেরই রাঁচির বুন্ডু, তামার ও সোনাহাতু ব্লকের কয়েকটি গ্রামে এক দল হাতি রীতিমতো তান্ডব চালাচ্ছিল। খেতের ফসল নষ্ট করা থেকে শুরু করে বাড়িতেও হানা দিচ্ছিল তারা। এক নারীকে জখমও করে।

পাশেই ‘তামার’ ফরেস্ট। হাতি ঠেকাতে গ্রামবাসীরা ডাকলেন বনকর্মীদের। কিন্তু তাদেরও নাস্তানাবুদ অবস্থা। এ সময় ওই গ্রামের পাশের জাতীয় সড়ক দিয়ে তিনটে উট নিয়ে যাচ্ছিলেন দুজন লোক। আগের অভিজ্ঞতার কথা মাথায় রেখেই তারা হাতি তাড়ানোর জন্য তিনটে উট ধার নেন। ফলও মেলে হাতেনাতে।

এবারও দেখা গেল, উটের মুখোমুখি হয়ে হাতির দল পিঠটান দিচ্ছে। এই দুটি ঘটনার পরে ওখানকার ফরেস্টের প্রস্তাব, জেলার ফরেস্ট অফিসগুলোর জন্য কমপক্ষে তিনটে করে উট কেনা হোক।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, উট দেখে কেন পালাচ্ছে হাতি? এ ব্যাপারে হস্তি-বিশারদদের ধারণা দুটি। এক. একেবারে নতুন একটি জন্তুকে দেখেই বোধহয় হাতির এই আচরণ। কারণ, এখানে হাতির কাছে উট একেবারেই অপরিচিত। দুই. হাতির ঘ্রাণশক্তি খুব প্রবল। এমনও হতে পারে যে, উটের গায়ের গন্ধ হাতির পছন্দ নয়। তাই পালাচ্ছে।

কারণ যাই হোক, উট-ফর্মুলায় দুবার সাফল্য মেলায় এই অভিজ্ঞতাকেই কাজে লাগাতে চাইছেন হাতি-তান্ডবে অতিষ্ঠ ঝাড়খন্ডের বনকর্তারা।

তথ্যসূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

You Might Also Like