বন্দুক নেই, ছুরি আছে

অস্ত্র অধিকার আইনের প্রশংসা করলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সাম্প্রতিককালে বেশ কয়েকটি বন্দুকধারী হামলার ঘটনায় হতাহতের প্রেক্ষিতে দেশটিতে অস্ত্র অধিকার আইন সংশোধনে জোর দাবির মধ্যেই এর স্বপক্ষে কথা বললেন তিনি।
অস্ত্র অধিকার আইনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরতে তিনি সাম্প্রতিককালে যুক্তরাজ্যে ছুরি নিয়ে হতাহতের ঘটনা তুলে ধরেন। তিনি লন্ডনে বিভিন্ন ছুরি হামলার ঘটনায় দুঃখও প্রকাশ করেন।

শুক্রবার ন্যাশনাল রাইফেল অ্যাসোসিয়েশনের (এনআরএ) সঙ্গে এক বৈঠকে ট্রাম্প অস্ত্র অধিকার আইনের পক্ষে কথা বলেন। টেক্সাসের ডালাসের ওই কনফারেন্সে ট্রাম্প জানান, আমেরিকার অস্ত্র অধিকার ‘অবরুদ্ধ’ অবস্থায় ছিল।

নাম উল্লেখ না করে লন্ডনের একটি হাসপাতাল সম্পর্কে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি সম্প্রতি লন্ডন নিয়ে একটি লেখা পড়েছি। লন্ডনের অস্ত্র আইন অবিশ্বাস্য রকমের কঠিন। ওই লেখায় দেখা যায়, লন্ডনের একটি খুবই স্বনামধন্য হাসপাতাল ভয়ানক ছুরিকাঘাতের ঘটনায় যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘তাদের বন্দুক নেই। তাদের ছুরি আছে এবং তাতেই হাসপাতালের সব মেঝে রক্তে রঞ্জিত।’

ট্রাম্প বলেন, ‘তাদের ভাষায়, সামরিক যুদ্ধক্ষেত্রের হাসপাতালের মতোই ওই হাসপাতালটির বাজে অবস্থা। ছুরি, ছুরি, ছুরি আর ছুরি। লন্ডন এ ধরনের ঘটনায় অভ্যস্ত না। তাদেরকে এসবে অভ্যস্ত হতে হচ্ছে। এটি সত্যিই কঠিন ব্যাপার।’

আগামী গ্রীষ্মে যুক্তরাজ্য যাওয়ার কথা রয়েছে ট্রাম্পের। এর্ আগে তার নির্ধারিত যুক্তরাজ্য সফর সেখানকার ট্রাম্পবিদ্বেষীদের আন্দোলনের মুখে বাতিল হয়ে যায়।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে অস্ত্র অধিকার আইনে ১৮ বছরের ওপরে যে কেউ লাইসেন্সকৃত অস্ত্র বহন করতে পারেন। সাম্প্রতিক নানা বন্দুক হামলার ঘটনায় এ আইন বাতিল কিংবা সংশোধনের দাবি ওঠে। তবে ট্রাম্প বরাবরই অস্ত্র অধিকার আইনের পক্ষে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারণার সময় হিলারী ক্লিনটন অস্ত্র অধিকার আইন সংশোধনের কথা বললে ট্রাম্প বলেন, ‘যদি কেউ তাকে (হিলারী ক্লিনটন) গুলি করে হত্যা করে তার জন্য কেউ দায়ী হবে না।’

তথ্য : বিবিসি

You Might Also Like