বগুড়ায় গর্ভবতী স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসি

বগুড়ায় গর্ভবতী স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামীর ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তার ১ লক্ষ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এস এম সাইফুল ইসলাম বুধবার দুপুরে এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এ্যাড. আব্দুল বারী এবং আসামি পক্ষে ছিলেন এ্যাড. আব্দুল বাছেদ।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ১৯৯৯ সালে বগুড়া সদরের হটিলাপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে বাপ্পী মিয়ার সঙ্গে শহরের জয়পুরপাড়ার আবুল হোসেনের মেয়ে কহিনুরের বিয়ে হয়। কহিনুর ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় ২০০০ সালের ১৪ জুন রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝগড়া হয়। এ সময় বাপ্পী লাঠি ও লোহার রড দিয়ে কহিনুরকে বেদম মারপিট করলে কহিনুর মারা যায়। পরে কহিনুরের লাশ বাড়ীর পাশের ডোবায় ফেলে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় নিহত কহিনুরের পিতা আবুল হোসেন বাদী হয়ে ১৬ জুন বগুড়া সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় কহিনুরের স্বামী বাপ্পী, বাপ্পীর ভাই পাপ্পু ও টুটুল, টুটুলের স্ত্রী রানী বেগম এবং বাপ্পীর মা আরেফা বেগমকে আসামি করা হয়।

মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে বিচারক ঘাতক স্বামী বাপ্পীকে ফাঁসির আদেশ দেন। একই সঙ্গে মামলার অন্য সব আসামিদের বেকসুর খালাস দেন আদালত।

You Might Also Like