ফের বনানীতে হোটেলে ধর্ষণের অভিযোগ

ফের ঢাকার বনানীর একটি হোটেলে এক তরুণীকে নিয়ে গিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এই অভিযোগে কুশান ওমর সুফি নামের একজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু দমন আইনে গত ১৩ ডিসেম্বর বনানী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী ওই তরুণী। অভিযুক্ত কুশান ওমর সুফি শাস্ত্রীয় সংগীত শিল্পী আনুশেহ আনাদিলের ভাই।

অভিযোগে বলা হয়েছে, ২০ নভেম্বর রাতে বনানীর ‘সুইট ড্রিম’ হোটেলের ৮০৫ নম্বর কক্ষে কুশান ওমর ভুক্তভোগী ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন।

বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল মতিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, অভিযোগ পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ওই তরুণীর মেডিক্যাল পরীক্ষা করানো হয়েছে। পরীক্ষার প্রতিবেদনে ধর্ষণের সত্যতা পাওয়া গেলে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ঘটনার দিন বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওমর তরুণীকে ধর্ষণ করেন। পর দিন বিষয়টি নিয়ে তরুণী বনানী থানায় মৌখিক অভিযোগ করলে সেখানে বিয়ে করার শর্তে বিষয়টি আপোশ হয়। এরপর ভুক্তভোগী জানতে পারেন ওমরকে তার বোন আনুশেহ আনাদিল বিদেশে পাঠিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন। এরপর তিনি প্রথমে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি ও পরে বনানী থানায় মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগে বলা হয়, কুশানের সঙ্গে তার প্রায় দেড় বছরের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাদের মধ্যে ভালো বোঝাপড়া ছিল। এক পর্যায়ে ওমর তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেন।

অভিযোগ থেকে আরো জানা যায়, চলতি বছরের জুন মাসে ওমর কুশান বিদেশে গিয়ে সেপ্টেম্বর মাসে দেশে আসেন ও ওই তরুণীকে বিয়ের আশ্বাস দেন। গত ১৯ নভেম্বর রোববার বিয়ের বিষয়ে আলোচনা করতে ওই তরুণী কুশান ওমরের বাসায় যান। কিন্তু ওমরের বোন আনুশেহ আনাদিল তাকে বাসায় ঢুকতে দেননি। তবে বাসায় বাইরে ওমরের সঙ্গে তরুণীর কথা হয়। তখন ওমর তরুণীকে নিয়ে কোনো একটি রেস্তোঁরায় বসে খাওয়ার কথা বলেন। খাওয়া-দাওয়া শেষে ওই দিন দিবাগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে ওমর ভুক্তভোগীকে নিয়ে বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ের হোটেল ‘সুইট ড্রিম’ এর ৮০৫ নম্বর কক্ষে যান। রাতের একসময়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওমর ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন।

ঘটনার পর দিন বিষয়টি থানায় ফোনে জানান তরুণী। পরে একটি টহল টিম তাদের থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ তরুণীকে কুশান ওমরের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগের পরামর্শ দেয়। পরে দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে ২১ নভেম্বর কুশান ওমর ওই তরুণীকে বিয়ে করবেন, এমন শর্তে আপোশ করেন।

২১ নভেম্বর ভুক্তভোগী তরুণী কুশান ওমরের বাড়িতে যান। সে সময় ওমরের বোন আনুশেহ আনাদিল, তার স্বামী পান্ডুরাঙা বস্নুমবার্গসহ কয়েকজন আত্মীয় তরুণীকে বাসায় ঢুকতে পুনরায় বাধা দেন ও মারধরের হুমকি দেন। পাশাপাশি ওমরকে তারা বিদেশে পাঠিয়ে দেবেন বলে তাকে জানান।

পরে ভুক্তভোগী এ বিষয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় গত ২৩ নভেম্বর প্রাণনাশের হুমকি পেয়েছেন মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি (নং-৯৩৫) করেন। ডায়েরিতে কুশান ওমরের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে অনুরোধ করেন।

You Might Also Like