প্রেমের ফাঁদে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে নির্যাতন ও মুক্তিপণ দাবি

প্রেমের ফাঁদে ফেলে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে বাসায় আটকে রেখে পাশবিক নির্যাতন করে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে এক প্রেমিক।

অভিযুক্ত প্রেমিক মো. অলিউর রহমান ওরফে কচিকে সোমবার গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

র‌্যাব হেডকোয়ার্টার্স থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রোববার দিবাগত রাতে কলাবাগান থানার লেক সার্কাস রোডের ৬৭ নম্বর বাসায় অভিযান চালিয়ে কচিকে গ্রেপ্তার এবং অপহৃতাকে উদ্ধার করা হয়।

অপহৃতা মোছা. রিফাত নূর জান্নাত তমা ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে পড়াশোনা করার সময় কচির সঙ্গে পরিচয় ঘটে। এক বছর আগে তমার সঙ্গে কচির পারিবারিকভাবে বিয়ের বিষয়ে আলোচনাও হয়। তবে বিকৃত মানসিকতা এবং আচরণগত সমস্যার কারণে তমার পরিবার বিয়ে দিতে রাজি হয়নি। তবে কচি তমাকে বিভিন্ন সময়ে ঢাকায় এসে উত্ত্যক্ত করত। এক পর্যায়ে তমাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে-বহির্ভূত অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। ২৮ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য তমা বাসা থেকে বের হয়। এ সময় কচি তমাকে ফুঁসলিয়ে প্রাইভেটকারে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এর পর তমাকে অমানবিক নির্যাতন করে মোবাইল ফোনে পরিবারকে আহাজারি ও কান্না শুনিয়ে মুক্তিপণ বাবদ ৫ লাখ দাবি করে। এ টাকা ব্যাংক বা বিকাশের মাধ্যমে না পাঠালে গুলি করে তমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। একই সঙ্গে অপহরণের পর দিন কচি তমাকে কক্সবাজার নিয়ে যায়।

৩০ এপ্রিল সকালে আবার ঢাকায় এনে আটক রেখে তমার মাথার চুল কেটে দেয়, শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ব্লেড দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় রক্তাক্ত জখম করে। পরে মামলার ভয়ে বাসায় ডাক্তার এনে শরীরের জখমকৃত স্থানে সেলাই করে প্রাথমিক চিকিৎসা সম্পন্ন করে। কচি লন্ডন থেকে বার-অ্যাট-ল সম্পন্ন করে সম্প্রতি দেশে আসে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।

You Might Also Like