প্রেমিকার জন্য বিমানবন্দরে ১০ দিন অপেক্ষা

‘প্রেম রোগ, কঠিন রোগ’। প্রেম সম্পর্কে এমন সরল ভাষ্যের আড়ালে প্রেমের শক্তিই লুকিয়ে আছে বৈকি।

প্রেমে পাগল এক ডাচ পুরুষ তার প্রেমিকার জন্য বিমানবন্দরে অপেক্ষায় আছেন টানা ১০ দিন। অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে অসুস্থ হয়ে অবশেষে তাকে যেতে হয়েছে হাসপাতালে। প্রেম নিয়ে হাজারো রোমাঞ্চকর ঘটনায় এবার যুক্ত হলো অনলাইনে চীনা বান্ধবীর প্রেমে পড়া নেদারল্যান্ডসের এ ব্যক্তির ঘটনা।

আলেকজান্ডার পিটার কির্ক, বয়স ৪১ বছর। নেদারল্যান্ডস থেকে বিমান উড়ে হাজির হন চীনের হুনান প্রদেশে। তার লক্ষ্য প্রেমিকা ঝাংয়ের (এক শব্দের নাম উল্লেখ করা হয়েছে) সঙ্গে দেখা করার। অনলাইনে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

হুনান প্রদেশের চাংশা বিমানবন্দরে প্রেমিকা ঝাংয়ের জন্য এক দিন, দুই দিন করে টানা ১০ দিন অপেক্ষায় করেছেন। কিন্তু ঝাং তার প্রেমিক কির্কের সঙ্গে দেখা করতে সক্ষম হননি। এখানেই শেষ নয়, এই ডাচ প্রেমিক চীনে তেমন সহানুভূতিও পাননি।

কির্ক চীনা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, দুই মাস আসে একটি অ্যাপে ঝাংয়ের সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়। তারপর প্রেম। তিনি সিদ্ধান্ত নেন, প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে হুনান যাবেন। যে কথা, সেই কাজ। কিন্তু হুনানে এসে দেখেন, তার সঙ্গে কেউ দেখা করতে আসছে না।

হুনান টেলিভিশন চ্যানেল জানিয়েছে, ১০ দিন অতিবাহিত হলেও বিমানবন্দর ত্যাগ করতে চাইছিলেন কির্ক। কিন্তু তার স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ায় পরে কর্তৃপক্ষ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ ঘটনা প্রচারিত হওয়ার একদিন পর ঝাং হুনান টিভির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি দাবি করেন, তার মনে হয়েছিল, পুরো বিষয়টিই তামাশা।

ঝাং আরো দাবি করেন, আমাদের দুজনের মধ্যে মধুর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু কিছু দিন পর আমার মনে হয়েছিল, সে আমাকে নিয়ে একটু বেশিই বিচলিত হয়ে পড়েছে।

কয়েকদিন পর সে আমাকে একটি বিমান টিকিটের ছবি পাঠায়। আমি মনে করি, এটি আমার সঙ্গে মজা করার জন্য করা হয়েছে।

ঝাং জানান, যে সময় কির্ক হুনানের বিমানবন্দরে অবস্থান করছিলেন, তখন তিনি অন্য একটি প্রদেশে প্লাস্টিক সার্জারি করানোর জন্য অবস্থান করছিলেন।

গত মাসের শেষ দিকে হুনানে আসা কির্ক এ সপ্তাহে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এত কষ্ট সহ্য করেও প্রেমিকার সঙ্গে তার দেখা হলো না। তবে ঝাং কথা দিয়েছেন, তিনি সুস্থ হলেই কির্কের সঙ্গে দেখা করবেন।

তবে চীনের জনপ্রিয় মাইক্রোব্লগিং সাইট ওয়েইবোতে কির্ককে নানাভাবে হেয় করা হয়েছে। তাকে পাগল, উন্মাদ বলেও অনেকে সম্বধন করেছেন। হ্যাঁ, কির্ক সত্যিই এক পাগল প্রেমিক, নয় কি?

You Might Also Like