প্রবাসী যুবককে নির্যাতন, পুলিশের এএসআই ক্লোজ

দাবিকৃত তিন লাখ টাকা না দেওয়ায় এক প্রবাসী যুবকের উপর পুলিশি নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্ত গৌরনদী মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক মো. মহিউদ্দিনকে ক্লোজ করা হয়েছে।

বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার এস এস আক্তারুজ্জামান।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের মো. মোসলেম সরদারের ছেলে মনির সরদার (৩২) ২০১৪ সালে কাতার যান। ১৫-২০ দিন আগে ছুটিতে বাড়িতে আসেন।

মনিরের বাবা মোসলেম সরদার জানান, মনির বাড়িতে আসার কয়েক দিন পরে পুলিশ বাড়িতে এসে তার নামে গৌরনদী থানায় ওয়ারেন্ট আছে বলে তাকে খুঁজতে থাকে।

ওয়ারেন্ট থেকে রক্ষা পেতে দাবিকৃত তিন লাখ টাকা দেওয়ার মতো অবস্থা নেই- এমন কথা বললে দারোগা মহিউদ্দিন ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, ‘এত দিন বিদেশে থেকে এসেছে টাকা নেই, তয় মজা দেখাইতেছি বলেই মনিরকে মারধর শুরু করেন।’ নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে বৃদ্ধ মোসলেম কান্নায় ভেঙে পড়েন।

কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, ‘পুলিশ মোর বাবাকে পিটিয়ে সারা শরীর দিয়ে রক্ত বাইর করছে। প্লাস দিয়ে হাতের বুড়ো আঙ্গুল চেপে রক্ত বের করেছে। এক পর্যায়ে ডান হাতের গোড়া ও কব্জি ভেঙে দিয়েছে। আমার বাবায় অন্যায় করলে আপনারা তারে মাইরা ফালান মুই কষ্ট পামু না। অন্যায় ছাড়া আমার বাবারে পুলিশ এই রহম মারছে। কার কাছে গেলে বিচার পামু, আল্লাহ তুমি এর বিচার কর।’

গৌরনদী থানা সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার দুপুর ৩ টায় গৌরনদী মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক মো. মহিউদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উপজেলার ভূরঘাটা এলাকা থেকে মনির সরদারকে গ্রেপ্তার করেন।

গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. মাহবুব আলম মির্জা বলেন, ‘রাতে গৌরনদী মডেল থানার এএসআই মহিউদ্দিন এক রোগীকে নিয়ে এসে বলেন- মনিরকে জনগণ গণপিটুনি দিয়েছে। কিছুক্ষণ পর চিকিৎসা না দিয়ে বরিশাল পাঠানোর কথা বলে নিয়ে যান। রোগীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত এবং ডান হাত ভাঙা ছিল।’

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে এএসআই মো. মহিউদ্দিন টাকা দাবি ও নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘গ্রেপ্তার করতে গেলে ধস্তাধস্তিতে সে হাতে ব্যথা পেয়ে থাকতে পারে।’

এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফিরোজ কবির বলেন, ‘টাকা দাবির অভিযোগের সত্যতা নেই।’ হাত ভাঙা প্রসঙ্গে বলেন, ‘কিছু দিন আগে আছাড় খেয়ে মনিরের হাত ভেঙে গেছে। এএসআই মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে বরিশাল পুলিশ সুপার মহোদয়ের কাছে রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে।’

বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার এস এম আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘অবৈধভাবে মনিরের উপর নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে এএসআই মহিউদ্দিনকে বরিশাল পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। পরবর্তীতে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে কেউ অভিযুক্ত হলে তার কিংবা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

You Might Also Like