প্রকাশ্যে মূত্র ত্যাগের প্রতিবাদ করায় পিটিয়ে হত্যা

শৌচাগারে নয়, রাস্তার ধারেই প্রস্রাব করছিলেন কয়েক জন যুবক। আর তারই প্রতিবাদ করেছিলেন রবীন্দ্র। কিন্তু, পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার সেই আর্জি জানাতে গিয়ে ‘পুরস্কার’ হিসাবে জুটল বেধড়ক মার। আর সেই মারেই মৃত্যু হলো তার।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দিল্লির জিটিবি মেট্রো স্টেশন এলাকায়। পেশায় ই-রিকশাচালক রবীন্দ্র, দিল্লির কিশোর মার্কেট এলাকার বাসিন্দা। প্রতি দিনের মতোই শনিবার নিজের রিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন রবীন্দ্র। মেট্রো স্টেশনের কাছেই তার রিকশাটি রাখা ছিল। হঠাৎই দেখতে পান, মেট্রো স্টেশনের গায়েই প্রস্রাব করছেন দু-তিন জন যুবক। তৎক্ষণাৎ এগিয়ে গিয়ে ঘটনার প্রতিবাদ করেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এটা রবীন্দ্রর বরাবরের অভ্যাস। কেউ রাস্তা নোংরা করছে দেখলেই প্রতিবাদ করে থাকেন তিনি। এ দিনও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু তার ফল যে এতটা মারাত্মক হতে পারে তা বোধহয় ভাবতেও পারেননি রবীন্দ্র।

প্রতিবাদ জানানোর পরেই রবীন্দ্রর সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন যুবকদের দলটি। একপ্রস্ত ঝামেলার পর ফিরেও গিয়েছিলেন তারা। কিন্তু রণে যে ভঙ্গ দেননি তা বোঝা যায় কিছুক্ষণের মধ্যেই। রাত আটটা নাগাদ প্রায় পনেরো-কুড়ি জনের একটি দল ফিরে আসে ওই এলাকায়। ঝাঁপিয়ে পড়ে রবীন্দ্রর উপর। বেধড়ক মারের পর রবীন্দ্রকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফেলে রেখে ফিরে যায় তারা। ওই অবস্থাতেই কোনও রকমে তার ভাইকে ফোন করেন রবীন্দ্র। তাকে স্থানীয় বরা হিন্দু রাও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

দিল্লি নর্থ-ওয়েস্টের পুলিশ কমিশনার মিলিন্দ দমবেরে জানিয়েছেন, হামলাকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অপরাধীরা আইনমাফিক শাস্তি পাবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

You Might Also Like