পারলে আমাকে জেলে পাঠাক

সারদা কেলেঙ্কালির ঘটনায় ক্ষেপেছেন কলকাতার ‘দিদি’ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লিতে বিজেপির উচ্চপদস্থ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের মাত্র ৭২ ঘণ্টা যেতে না যেতেই প্রধানমন্ত্রী মোদির বিরুদ্ধে বাকযুদ্ধ ঘোষণা করলেন তিনি। শনিবারের বক্তব্যে মোদি সরকারকে পশ্চিমবঙ্গে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা আরোপ করতে বলেন এবং তাকে গ্রেপ্তার করার কথাও বলেন মমতা।

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গে বেশকিছু স্থানে অনেক তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। তবে মমতার জন্য সবচেয়ে বড় আঘাত হলো- কয়েকদিন আগে রাজ্যসভার এমপি শ্রীঞ্জয় বোসকে (টুম্পাই) সারদা কেলেঙ্কারির সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার করে সিবিআই পুলিশ। ভারতের রাজনীতি বিশ্লেষকদের মধ্যে অনেকেই মনে করছেন, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের ঘাঁটিতে আঘাত হানার সবরকম চেষ্টাই করবে বিজেপি সরকার। আর সারদা কেলেঙ্কারিই তৃণমূল কংগ্রেসের দুর্গে ফাটল ধরাতে যথেষ্ট।

শনিবার পার্টি কর্মীদের সঙ্গে এক সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘আমরা যদি আঘাতপ্রাপ্ত হই, তাহলে পাল্টা আঘাত করবো। আমাকে জেলে পাঠাক, আমিও দেখে নেবো তাদের জেল কত বড়।’ এসময় মমতা দাবি করেন, বিজেপি তাকে টার্গেট করার মূল কারণ হলো- কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর আমন্ত্রণে কয়েকদিন আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জওহরলাল নেহেরুর ১২৫তম জন্মদিন পালন করতে দিল্লি গিয়েছিলেন। এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘তারা টুম্পাইকে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে প্রতিশোধ নিয়েছে। কারণ আমি সেখানে একটি সেকুল্যার পার্টির আমন্ত্রণে গিয়েছিলাম। আমিও চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলাম। আর এটা আমি কয়েক শত বার, কয়েক হাজার বার করেছি। আমার বিজেপির সার্টিফিকেট দরকার নেই।’

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির কার্যক্রম সম্পর্কে বলতে গিয়ে মমতা বলেন, ‘বিজেপিকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আমাদের ভালো কাজ চালিয়ে যেতে হবে এবং আমাদের উন্নয়নের ঝাণ্ডা সমুন্নত রাখতে হবে। যারা বিজেপিতে যোগ দিতে চায় তারা পার্টি ত্যাগ করতে পারে।’ মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের ভেতর দিয়ে এটা পরিষ্কার যে, কলকাতায় সম্প্রতি তৃণমূল কংগ্রেসকে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে।

You Might Also Like