পাবনায় স্বামী ও স্বজনদের হাতে নববধূ খুন

জেলার ফরিদপুর উপজেলায় নববধূ হিমু খাতুন (১৮) কে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে তার স্বামী ও স্বজনরা। বৃহস্পতিবার রাতে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। ঘটনার পর পলাতক রয়েছে স্বামী ও স্বজনরা। নিহত হিমু ফরিদপুর পৌর এলাকার থানপাড়া মহল্লার আব্দুল হান্নানের মেয়ে ও ভাঙ্গুড়া উপজেলার পার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের হাটগ্রামের মামুন হোসেনের স্ত্রী।

পরিবারের বরাত দিয়ে ফরিদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, গত ৪ মাস আগে বিয়ে হয় মামুন ও হিমুর। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়।

গত বুধবার হাটগ্রামের শ্বশুর বাড়ি থেকে হিমুকে বাবার বাড়িতে নিয়ে আসেন তার মা। পরদিন অর্থাৎ গতকাল বৃহস্পতিবার মেয়ের বাবার বাড়িতে গিয়ে শাশুড়িকে বুঝিয়ে হিমুকে নিয়ে পার-ফরিদপুর গ্রামে নানার বাড়ি বেড়াতে যায় স্বামী মামুন।

সেখানে বৃহস্পতিবার রাতের কোন এক সময় স্ত্রী হিমুকে মারপিট ও শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ঘরের আঁড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায় মামুন ও তার স্বজনরা। খবর পেয়ে পুলিশ শুক্রবার সকালে নববধূ হিমুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ওসি হাবিবুর আরও জানান, এ ঘটনায় হিমুর বাবা আব্দুল হান্নান বাদি হয়ে জামাই মামুন ও তার বাবা, মা, বোনসহ ৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নম্বর ৬। ঘটনার পর থেকে মামুন ও তার স্বজনরা পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। তবে তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি।

You Might Also Like