পাকিস্তানের কাছে বাংলাদেশ এক লাখ কোটি টাকা পাবে: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, “পাকিস্তানের কাছে বাংলাদেশ এক লাখ কোটি টাকা পাবে। সেই পাওনা দেয়া তো দূরে থাকুক, তারা কোনো মিটিংয়ে বসে না। শুধু আজ না কাল টালবাহানা করে। দুই বছর ধরে পাওনা নিয়ে কোনো মিটিংয়েও বসছেন না পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।”

আজ (শুক্রবার) সন্ধ্যায় গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌর ছাত্রলীগের কর্মিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, “তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে বাংলাদেশের যত মানুষ ছিল তাদের অনেকের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ছিল। সেই অ্যাকাউন্টের টাকা তারা নিয়ে গেছে। ১৯৭০ সালের ঘূর্ণিঝড়ে ১০ লাখ লোক মারা গিয়েছিল। ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনদের জন্য ২০০ বিলিয়ন ডলার সাহায্য দেয়া হয়েছিল। যার একটি টাকাও পাকিস্তান আমাদের দেয়নি। সেই টাকা পাকিস্তানিরা লুট করে মেরে খেয়েছে, সেই টাকা আমাদের প্রাপ্য।”

আ ক ম মোজাম্মেল হক আরও বলেন, “পাকিস্তান রাজধানী করাচিতে করেছে, তারপর ইসলামাবাদ, এরপর রাওয়ালপিন্ডিতে। এ তিনটা রাজধানীর অর্ধেক আমাদের পাওনা। পাকিস্তানের যত দূতাবাস ছিল, দূতাবাসের অর্ধেক আমাদের পাওনা। পাকিস্তানে যত বৈদেশিক মুদ্রা ছিল, অর্ধেক আমাদের টাকা ছিল। সেই হিসাবে তখনকার আমলের ১২ হাজার কোটি টাকা আমাদের ছিল। আজকে সেখানে আমরা এক লাখ কোটি টাকা পাওনা হয়েছি। সেই টাকা তো তারা দিচ্ছেই না উল্টো পায়ে পাড়া দিয়ে ঝগড়া করতে চায়।”

এর আগে গতকাল এক সাক্ষাৎকারে মোজাম্মেল হক বলেন, “পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টো যখন বাংলাদেশে আসেন, তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই পাওনার বিষয়টি তুলেছিলেন। এরপর বিভিন্ন সময় আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি মৌখিকভাবে বলেছে, তারা কর্ণপাত করেনি। এখন খবর শোনা যাচ্ছে, দেশটি নাকি আমাদের কাছে অর্থ পাবে। হাস্যকর বিষয়। আমরা আন্তর্জাতিক দরবারে যাবে।”

একইদিন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বাংলাদেশের কাছে পাকিস্তানের ৯২১ কোটি রুপি পাওনার দাবিকে ‘টোটালি রাবিশ’ বলে মন্তব্য করেন।

You Might Also Like