নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশনের সভায় ৫ জনকে কারণ দর্শানোর সিদ্ধান্ত

নিউইয়র্ক : নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইনক্্-এর সভায় সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ, সংগঠনের কর্মকর্তাদের না জানিয়ে সভা করা এবং সংগঠনের সভাপতির বিরুদ্ধে পত্র-পত্রিকায় মিথ্যা তথ্য দিয়ে খবর প্রচার ও বিজ্ঞাপন প্রদানের জন্য এসোসিয়েশনের পাঁচ কর্মকর্তা যথাক্রমে উপদেষ্টা সোহেব আহমেদ খান, সহ সভাপতি হাজী শহিদুল ইসলাম ও এম রহমান সাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া বিল্লাল ও প্রচার সম্পাদক আব্দুল করীমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারীর সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ১০ দিনের মধ্যে তাদেরকে নোটিশের জবাব প্রদান করতে হবে, অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
গত ৭ সেপ্টেম্বর রোববার সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি হলে অনুষ্ঠিত এসোসিয়েশনের সভায় উপরোক্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন এসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন এবং সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মো: ইউসুফ (বিজু)।
সভায় এসোসিয়েশনের কর্মকর্তাদের মধ্যে সহ সভাপতি বাবুল দেওয়ান ও শাহ মাসুদ, সহ সাধারণ সম্পাদক তানভির এ মিলন ও শেখ আব্দুল মালেক, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক গণেষ কীর্ত্তনীয়া, সদস্য শেখ মিলন ফরিদ, মো: নাসির উদ্দিন, আবুল কালাম কিরণ, মো: সিরাজুল ইসলাম, রুমান হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ঢাকা থেকে সহ সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফর রহমান টেলিফোনে সভার সিদ্ধান্তের সাথে একমত পোষণ করেন।
সভায় বলা হয়, হাজী শহিদুলের নেতৃত্বে ৩১ আগষ্ট অনুষ্ঠিত তথাকথিত সভায় বিশিষ্ট রাজনীতিক, কমিউনিটির পরিচিত মুখ, সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের বিরুদ্ধে যে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে তা অসাংগঠনিক এবং অবৈধ। সভা থেকে তাদের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং আগামীতে সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ বন্ধ রাখার আহ্বান জানানো হয়। সভায় বলা হয়, নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশন সভাপতি গিয়াস উদ্দিনের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছে।
এছাড়া এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ এস মিয়া তৌহিদ, আন্তর্জাতিক সম্পাদক নেসার আহমেদ, সদস্য মো: রিয়াজ উদ্দিন, মো: নাসির উদ্দিন ঐ সভার ব্যাপারে অবগত নন এবং ঐ সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তের সাথেও একমত নন বলে জানিয়েছেন।  প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

You Might Also Like