নওগাঁয় বিয়ের প্রলোভনে এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে গণধর্ষণ

নওগাঁর পত্লীতলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে প্রেমিকসহ পাঁচজন ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় স্থানীয়রা চারজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। তবে পলাতক রয়েছে কথিত প্রেমিক।
শনিবার আটকদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়। আটকরা হলেন, ধোরপট গ্রামের আব্দুল কাদেরের ছেলে মিন্টু, মৃত আব্দুর সামাদের ছেলে ওবাইদুল, ছোট মাহরন্দী গ্রামের হারেজ উদ্দীন ও মান্দাইন গ্রামের মৃতঃ রহিম উদ্দীনের ছেলে ছয়ফুল ইসলাম।
তবে প্রেমিক ধোরপট গ্রামের আব্দুল আওয়ালের ছেলে সারোয়ার রহমান বাবু কে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে বিকেলে গণধর্ষণের শিকার ওই শিক্ষার্থী পাঁচজনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছে।
পত্লীতলায় থানার ওসি আব্দুর রফিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘বাবুকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে।’
পুলিশ জানায়, পত্লীতলায় ধোরপট গ্রামের সারোয়ার রহমান বাবু ধামইরহাট কলেজের ওই শিক্ষার্থীকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল যোগে উপজেলার মান্দাইন বাজারে নিয়ে আসে। সেখানে আগে থেকেই ছিল বাবুর চার বন্ধু। পরে রাত ১০টার দিকে বাবুসহ পাঁচজন ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে। এক মেয়েটির চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে এবং চার ধর্ষককে আটক করে। এ সময় পালিয়ে যায় বাবু।

You Might Also Like