ধর্মযাজক লুক হত্যাচেষ্টার প্রধান আসামি রাকিবুল গ্রেফতার

পাবনার ঈশ্বরদীতে ধর্মযাজক লুক সরকারকে গলা কেটে হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি জেএমবি পাবনার আঞ্চলিক কমান্ডার রাকিবুল ইসলাম ওরফে রফিককে (২১) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা এর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার বেলা ১১টার দিকে তাকে সদর উপজেলার মজিদপুর এলাকা থেকে সদর থানা পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত রাকিবুল মজিদপুর গ্রামের আবদুল মালেক ওরফে মানিকের ছেলে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরো জানায়, গ্রেফতারকৃত রাকিবুল ধর্মযাজক লুক সরকার হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি ও মুল পরিকল্পনাকারী। গ্রেফতারের পর তাকে নিয়ে অভিযানে নেমেছে পুলিশ। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

প্রসঙ্গত: গত ৫ অক্টোবর সকালে তিন যুবক মোটরসাইকেলযোগে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর সড়কে ভাড়া বাসায় ঢুকে ধর্মশিক্ষার নাম করে ঈশ্বরদীর ফেইথ বাইবেল চার্চের যাজক লুক সরকারকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করে। পরে ওইদিন রাতে এ ঘটনায় লুক সরকার নিজেই বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

এ ঘটনার পর দুর্বৃত্তদের শনাক্ত ও গ্রেফতার করতে পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সের এলআইসি শাখা ও পাবনা জেলা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে যৌথ অভিযান চালায়। এরই একপর্যায়ে পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও ঢাকা থেকে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় জড়িত জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)’র পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গত ১২ অক্টোবর পাবনা পুলিশ সুপার আলমগীর কবির এক সংবাদ সম্মেলনে পাঁচ জেএমবিকে গ্রেফতারের বিষয়টি গণমাধ্যমকর্মীদের জানান।

ওই গ্রেফতারকৃত পাঁচ জেএমবি সদস্য হলেন, পাবনা সদর উপজেলার নুরপুর গাংকোলা গ্রামের আবদুল জলিলের ছেলে আবদুর রাকিবুল ওরফে রাব্বি (২২), একই উপজেলা সিংগা পালপাড়া গ্রামের আবদুর রহিম শেখের ছেলে জিয়াউর রহমান (৩৫), নাজিরপুর নিয়ামতুল্লাহপুর মৃত নওশের প্রামানিকের ছেলে আবদুল আলিম (৩৬), মজিদপুর মধ্যপাড়া গ্রামের মুনছুর আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম ওরফে তুলিব (২২) ও সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঘবাড়িয়া গ্রামের কাশেম আলীর ছেলে আমজাদ হোসেন (৩০)।

এ ঘটনায় সদর থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা করা হয়। এরপর গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রাকিবুল আদালতের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

এ ছাড়া ঈশ্বরদী ও সদর থানা পুলিশ বাকি চারজনকে দুই দফায় পাঁচদিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠায়।

You Might Also Like