হোম » ‘তুই আগে মানুষ হ’ কথাটি খুবই আপত্তিকর : ফারুক

‘তুই আগে মানুষ হ’ কথাটি খুবই আপত্তিকর : ফারুক

admin- Wednesday, October 18th, 2017

রাহাত সাইফুল : খান আতাউর রহমান। তিনি একাধারে অভিনেতা, চিত্রপরিচালক, প্রযোজক, সংগীত পরিচালক, গায়ক ও গীতিকার। সম্প্রতি এই নির্মাতার মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে মন্তব্য করেন নাট্যজন নাসিরউদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু। বিষয়টি বিভিন্ন মহলে আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দেয়। পরে এ প্রসঙ্গে তিনি ফেসবুক পেজে তার বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেন। আমরা এ প্রসঙ্গে জানতে মুখোমুখি হয়েছিলাম বাংলা চলচ্চিত্রে ‘মিয়াভাই’খ্যাত নায়ক ফারুকের।

ফারুক রাইজিংবিডির এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘‘খান আতা সাহেবকে নিয়ে যে মন্তব্য করা হয়েছে তা দুঃখজনক। ‘আবার তোরা মানুষ হ’সিনেমাটির পটভূমি তিনি (নাসিরউদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু) জানেন না বলেই আমার ধারণা। আর যেভাবে তিনি ঢালাওভাবে ‘রাজাকার’বলেছেন; এই শব্দের কিন্তু মানে আছে। সাড়ে ছয় কোটি মানুষ এখন তেরো কোটি মানুষে পরিণত হয়েছে। এক সেন্সে তাদের সবাইকে রাজাকারের খাতায় নাম লিখিয়ে দিলেন!

‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গানটি আলতাফ মাহমুদ ভাইয়ের হলেও এ গানটির জীবন দিয়েছেন খান আতা সাহেব। এই গানটির হামিম তার দেয়া। শুনে রক্ত টগবগ করে নেচে ওঠে। এগুলোর জন্য তিনি কোনো পারিশ্রমিক চাননি বা নামও চাননি। এ জে কারদার সাহেব একটি ভালো ছেলে খুঁজছিলেন। তখন খান আতা সাহেব জহির রায়হান সাহেবকে আবিষ্কার করেছিলেন। যে কারণে জহির সাহেব আতা ভাইকে সম্মান দিয়ে কথা বলতেন।

খান আতা সাহেব কলকাতা যেতে পারেননি। এক কোটি মানুষ গিয়ে সেখানে আশ্রয় নিয়েছেন। তারা তো মুক্তিযোদ্ধা নয়। তার মানে তারা কি রাজাকার? যুদ্ধের সময় তাকে রাখা হয়েছিলো গান পয়েন্টে। সেই অবস্থায় তাকে দিয়ে টিভিতে প্রোগ্রাম করানো হয়েছে। শুধু তাকে নয়, আরো অনেককেই এভাবে রাখা হয়েছিলো। আমরা তো তাদের নিয়ে সমালোচনা করি না। আমরা তাদের উদারতার কথা বলি। যাদের বুদ্ধিজীবী বলা হয়েছে, তাদের অধিকাংশ দেশেই কর্মরত ছিলো। যুদ্ধের পরে তাদের হত্যা করা হয়েছিলো। কিন্তু খান আতা বাসায় থাকতেন না বলে বেঁচে গিয়েছেন।

এ ধরনের কথা যারা বলেন তাদের একটা কথাই বলবো-গুণী মানুষকে ছোট করার আগে জেনে-বুঝে নেবেন। ‘তুই আগে মানুষ হ’-এই কথাটি খুবই আপত্তিকর। একজন ভদ্র মানুষ যদি তিনি (নাসিরউদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু) হয়ে থাকেন, তার মুখ থেকে এ ধরনের বাক্য বের হওয়ার কথা নয়।  বাচ্চু সাহেব আপনি ভুলে যাবেন না, এমন একজন মানুষকে নিয়ে আপনি মন্তব্য করেছেন, এতে আমাদের অঙ্গনের সব মানুষকে দুঃখ দেয়া হয়েছে।’’

৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার পর খান আতা সাহেব উল্লাস করেছেন- এটা কতটা সত্য? এই প্রশ্নের জবাবে ফারুক বলেন, ‘‘এগুলো মিথ্যে কথা। এসব বিষয়ের প্রমাণ দিতে হবে। শুধু বলে দিলেই হবে না। এগুলো এখন এক প্রকার বিজনেস হয়ে দাঁড়িয়েছে। ‘আবার তোরা মনুষ হ’সিনেমা দেখে স্বয়ং বঙ্গবন্ধু তাকে ডেকে নিয়ে বলেছিলেন, ‘আতা তুই একটা সুন্দর ছবি বানিয়েছিস। এ রকম ছবি বানাবি। তোর আগের সিনেমা ‘সিরাজউদ্দৌলা’দেখেছিলাম, সেটাও খুব ভালো ছিলো’। এসবের পর নতুন করে আর কি প্রমাণ দিতে হবে?’’

-রাইজিংবিডি.কম