ডাচ-বাংলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি হাসান খালেদের লাশ উদ্ধার

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ধানমন্ডি থেকে চারদিন আগে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হওয়া ডাচ-বাংলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মো. হাসান খালেদের লাশ আজ বুড়িগঙ্গা নদীর সাইনবোর্ড ঘাট এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইলিয়াস শরিফ জানান, লাশের সঙ্গে থাকা ভিজিটিং কার্ড থেকে পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হাসান খালেদের ছোট ভাই মুরাদ হাসান লাশ শনাক্ত করেছেন। হাসানের মৃতদেহ মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়েছে।

গত শনিবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডির বাসা থেকে ওষুধ কেনার জন্য বের হওয়ার পর থেকে হাসান খালেদ নিখোঁজ ছিলেন। ৫৫ বছর বয়সী হাসান খালেদ ধানমন্ডির ৪/এ রোডের ৪৫ নম্বর বাসায় স্ত্রী ও এক কন্যা সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন।

হাসান খালেদ নিখোঁজ হওয়ার পর শনিবার রাতেই তাঁর শ্যালক ধানমন্ডি থানায় একটি জিডি করেন।

আশির দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করা হাসান খালেদ গত ২৫ বছর ধরে আমদানি-রপ্তানি ও প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবসায় জড়িত ছিলেন। ব্যবসায়ী হাসান খালেদ দীর্ঘদিন ধরে তৈরি পোশাক আমদানি-রপ্তানির ব্যবসা করেন। নিউ ইস্কাটনে তাঁর দুটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় রয়েছে। এর একটি ‘নিউ এরা ট্রেডিং’ ও অন্যটি ‘কেমিকো বাংলাদেশ লিমিটেড’। তাঁর প্রতিষ্ঠান হংকংভিত্তিক ‘ক্রকোডাইল গার্মেন্টস’-এর বাংলাদেশি পরিবেশক। বসুন্ধরা সিটিতে তাঁর একটি দোকানও আছে।

যাদের উদ্যাগে ডাচ-বাংলা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ গঠিত হয়, তাদের মধ্যে হাসান খালেদ অন্যতম। বাংলাদেশের সঙ্গে নেদারল্যান্ডসের বাণিজ্যের উন্নয়নে ট্রেড ফ্যাসিলিয়েটর হিসেবেও তিনি কাজ করেছেন।

You Might Also Like