হোম » ট্রাম্প মিথ্যাচার করেছেন : সিনেট কমিটির শুনানিতে কোমি

ট্রাম্প মিথ্যাচার করেছেন : সিনেট কমিটির শুনানিতে কোমি

এখন সময় ডেস্ক- Thursday, June 8th, 2017

নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগ তদন্তকারী সিনেট কমিটির শুনানিতে হাজির হয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের অভিযোগ করেছেন সদ্য বরখাস্ত এফবিআই প্রধান জেমস কোমি।

যুক্তরাষ্ট্রের এই সময়ে সবচেয়ে আলোচিত এই শুনানিতে বৃহস্পতিবার হাজির হন কোমি, যাকে ঠিক এক মাস আগেই বরখাস্ত করেন ট্রাম্প। প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার চার মাসের মাথায় ট্রাম্পের ওই পদক্ষেপও ছিল ব্যাপক আলোচিত।

গণমাধ্যমে প্রচারিত এই শুনানি হোয়াইট হাউসে বসে ট্রাম্পও দেখেন বলে এক সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে। তার পরপরই হোয়াইট হাউসের এক প্রতিক্রিয়ায় বলা হয়, প্রেসিডেন্ট মিথ্যাবাদী নন।

ট্রাম্পকে বিজয়ী করা ডিসেম্বরের ভোটে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ ওঠার পর তার তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেওয়ার পর বরখাস্ত করা হয় কোমিকে, যিনি ভোটের ঠিক আগে হিলারি ক্লিনটনের ই-মেইলকাণ্ডের তদন্তের জন্য ডেমোক্রেটদের সমালোচনায়ও পড়েছিলেন।

ট্রাম্প দায়িত্ব নেওয়ার পরের মাসে রুশ হস্তক্ষেপ নিয়ে সমালোচনার মধ্যে সরিয়ে দিয়েছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিনকে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প, মাইকেল ফ্লিন ও জেমস কোমি ডোনাল্ড ট্রাম্প, মাইকেল ফ্লিন ও জেমস কোমি

ফ্লিনকেও জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়েছিলেন কোমি। তিনি দাবি করেছিলেন, তখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে সে কাজ বন্ধ করতে বলেছিলেন।

বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে সিনেট কমিটি শুনানির উদ্যোগ নিয়ে তলব করে কোমিকে, যাতে তিনি হাজির হয়ে শপথ নিয়ে বক্তব্য রাখেন।

শুনানিসে জেমস কোমি শুনানিসে জেমস কোমি

সাবেক এফবিআই প্রধান বলেন, তাকে বরখাস্তের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রীয় সংস্থাটিকেও অসম্মানিত করছে ট্রাম্প প্রশাসন।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রপ্রধান তার ক্ষমতা বলে যে কোনো সময় এফবিআই প্রধানকে বরখাস্ত করতেই পারেন। কিন্তু তাকে বরখাস্ত করতে গিয়ে যে সব যুক্তি দেখানো হয়েছে, তাতে তিনি যেমন বিস্মিত হয়েছিলেন, তেমন উদ্বিগ্নও হয়ে পড়েছিলেন।

“টেলিভিশনে আমি যখন খবরটি দেখি যে তখন রাশিয়া বিষয়ক তদন্তের জন্য আমাকে বরখাস্ত করা হয়েছে, তখন আমি বিস্মিত হয়েছিলাম। কেননা এর কোনো মানে আমার কাছে ছিল না।”

কোমির ভাষ্য, এর আগে বিভিন্ন সময় ট্রাম্প তার কাজের জন্য বাহবা দিয়ে আসছিলেন।

আবার ট্রাম্প যখন বরখাস্তের পক্ষে কারণ হিসেবে সংস্থার সদস্যদের আস্থা হারানোর কারণ দেখিয়েছিলেন, তখন উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন কোমি।

“এটা জলজ্যান্ত মিথ্যা কথা। আমি খুবই দুঃখিত যে এফবিআইকে এই কথা শুনতে হল এবং দেশের মানুষকে এই কথা শোনানো হল।”

শুনানিতে বক্তব্য দিচ্ছেন জেমস কোমি শুনানিতে বক্তব্য দিচ্ছেন জেমস কোমি

“আপনি কি মনে করেন যে রুশ তদন্তই আপনাকে বরখাস্তের কারণ”- শুনানিতে এই প্রশ্নে কোমি বলেন, “হ্যাঁ, কারণ আমি প্রেসিডেন্টকেও তাই বলতে দেখেছি।”

বারাক ওবামার সময় নিয়োগ পাওয়া কোমিকে বরখাস্তের পরপরই ট্রাম্প বলেছিলেন যে কোমির উপর তার সংস্থার সদস্যদের কোনো আস্থা নেই। কিন্তু পরে ইঙ্গিত দেন যে রাশিয়া বিষয়ক তদন্তের সঙ্গেও এর যোগসূত্র রয়েছে।

রুশ তদন্ত নিয়ে অভিযোগের মুখে আছেন ট্রাম্পের জামাতা জারড কুচনাও; ইভাঙ্কা ট্রাম্পের স্বামী কুচনার শ্বশুরের উপদেষ্টার পদে রয়েছেন।

শুনানিতে যে লিখিত বক্তব্য নিয়ে হাজির হন কোমি, তা একদিন আগেই প্রকাশ করা হয়েছিল।

তাতে তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাবেক উপদেষ্টা ফ্লিনকে নিয়ে তদন্ত বন্ধ করতে বলেছিলেন তাকে।

সিনেটের শুনানিতে আগ্রহ সবার সিনেটের শুনানিতে আগ্রহ সবার

সারা যুক্তরাষ্ট্রে এই শুনানিতে চোখ রাখার মধ্যে হোয়াইট হাউসের খাবার ঘরে বসে নিজের ব্যক্তিগত আইনজীবী মার্ক কাসোভিটসকে সঙ্গে নিয়ে টেলিভিশনের সামনে ছিলেন বলে রয়টার্স জানায়।

হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে রয়টার্সকে বলা হয়েছে, কোমির বিষয়ে ট্রাম্প অপ্রয়োজনীয় কোনো পদক্ষেপ নিয়েছিলেন বলে তারা মনে করছে না।

এই বিষয়ে মার্ক কাসোভিটস আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবেন বলে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে।

কোনো কোনো আইন বিশেষজ্ঞ বলছেন, কোমির বিবৃতি বিচার আটকানোর জন্য ট্রাম্পকে অভিসংশনের যে কোনো প্রস্তাবকে জোরদার করতে পারে।

তবে কোমি বলেছেন, আমি মনে করি না যে প্রেসিডেন্টের পদক্ষেপ বিচার আটকানোর জন্য। তবে তা ছিল বিরক্তিকর, একইসঙ্গে উদ্বেগেরও।”