ট্রাম্পের আক্রমণের কড়া জবাব দিল পাকিস্তান

নতুন বছরের প্রথম টুইটে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পাকিস্তানকে একহাত নেওয়ার বিরুদ্ধে কড়া জবাব দিয়েছে দেশটি।

ট্রাম্প বলেছেন, একদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে শত শত বিলিয়ন ডলার সহায়তা নিচ্ছে, অন্যদিকে একই সময়ে পাকিস্তান ‘মিথ্যাচার ও ধোঁকাবাজি’ করছে। একই টুইটে তিনি অভিযোগে করেছেন, পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদ রপ্তানি করছে।

ট্রাম্প একহাত নিলেও পাকিস্তান কম যায়নি। তার টুইটের কড়া জবাব দিয়ে পাকিস্তান বলেছে, সব তহবিলের হিসাব আছে। তারা পাল্টা অভিযোগ করেছে, ‘আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্র পরাজিত হওয়ায়’ ট্রাম্প ত্যাক্ত-বিরক্ত।

টুইটে ট্রাম্প বলেছেন, ‘গত ১৫ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র বোমার মতো পাকিস্তানকে ৩৩ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে কিন্তু মিথ্যা ও প্রতারণা ছাড়া তারা আমাদের কিছুই দেয়নি। তারা আমাদের নেতাদের বোকা মনে করে। তারা সন্ত্রাসীদের নিরাপদ স্বর্গ তৈরি করেছে, যেসব সন্ত্রাসীদের আমরা আফগানিস্তানে খুঁজছি কিন্তু তাতেও তারা খুব সামান্যই সাহায্য করেছে আমাদের। আর নয়।’

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা আসিফ দেশটির জিও টেলিভিশনকে বলেছেন, আমরা ইতিমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রকে বলে দিয়েছি, আমরা আর বেশি কিছু করব না। ফলে ট্রাম্পের ‘আর নয়’ মন্তব্য কোনো গুরুত্ব বহন করে না। খাজা আসিফ আরো বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে যে অর্থ সহায়তা নেওয়া হয়েছে, প্রকাশ্যে তার হিসাব দিতে পাকিস্তান প্রস্তুত।’

সম্প্রতি ট্রাম্প প্রশাসন নতুন জাতীয় নিরাপত্তা নীতি ঘোষণা করেছে। এরপরই ওয়াশিংটন ও ইসলামাবাদের মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন দেখা দেয়। জাতীয় নিরাপত্তা নীতি ঘোষণার সময় ট্রাম্প বলেছিলেন, আমেরিকাকে সহযোগিতা করতে পাকিস্তানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কারণ তারা প্রতি বছর ওয়াশিংটনের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ নিচ্ছে।

ট্রাম্প সে সময় বলেছিলেন, ‘আমরা যখন অংশীদারত্ব অব্যাহত রাখতে চাই, তখন পাকিস্তানকে পরিষ্কার জানাচ্ছি, তাদের অঞ্চলে যারা সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা কার্যকর পদক্ষেপ দেখতে চাই। আমরা পাকিস্তানকে প্রতি বছর বড় অঙ্কের অর্থ দিচ্ছি। তাদেরকে অবশ্যই সহযোগিতা করতে হবে।’

তথ্যসূত্র : বিবিসি ও রয়টার্স অনলাইন