টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রকে দণ্ড : ইউএনও-ওসিকে তলব

টাঙ্গাইলের সখীপুরের এক স্কুল শিক্ষার্থীকে মোবাইল কোর্টে কারাদণ্ড দেওয়ার ঘটনায় ওই থানার ইউএনও ও ওসিকে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর এই দুই কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির হয়ে কারাদণ্ডের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে হবে।

মঙ্গলবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে এই আদেশ দেন।

সংসদ সদস্য সম্পর্কে ফেসবুকে মন্তব্যের জেরে বালককে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে মর্মে একটি ইংরেজি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান আদালতের নজরে আনলে হাইকোর্ট এই আদেশ দেন।

খুরশিদ আলম খান বলেন, ‘আমি আদালতকে বলেছি, যেখানে ওই ঘটনায় একটি জিডি হয়েছে সেক্ষেত্রে বিষয়টি তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। তদন্তের পর্যায়ে থাকা কোনো বিষয়ে এভাবে মোবাইল কোর্টে দণ্ড দেওয়া যায় না। আর আসামি যদি শিশু হয়, তাকে শিশু আইনে বিচার করতে হতো। সেটাও দেখতে হবে। এরপর আদালত তলবের আদেশ দেন।’

তলব হওয়া কর্মকর্তারা হচ্ছেন সখীপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাকসুদুল আলম।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার রফিকুল ইসলাম ওই বালককে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দুই বছরের কারাদণ্ড দেন। এর আগের দিন টাঙ্গাইল-৮ বাসাইল-সখীপুর আসনের সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয় ওই বালকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেন। দণ্ডের পর সোমবার ওই বালককে জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ওই স্কুলছাত্র সখীপুরের প্রতিমা বঙ্কি গ্রামের বাসিন্দা শাহিনুর আলমের ছেলে সাব্বির শিকদার।

You Might Also Like