জোয়ারের পানিতে থৈ থৈ চট্টগ্রাম মহানগরী

বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে চট্টগ্রাম মহানগরী পানিতে থৈ থৈ করছে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছে অফিসগামী লোকজন ও স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা।

এদিকে অতি ভারি বর্ষণে পাহাড়ি এলাকায় ভূমি ধসের আশঙ্কাও প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৩৯ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া সমুদ্রবন্দরগুলোকে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

থেমে থেমে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানির কারণে নগরীর আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকা, কাপাসগোলা, কাতালগঞ্জ, চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা, বাকলিয়া সৈয়দ শাহ রোড, বাকলিয়ার অধিকাংশ এলাকায় হাঁটুপানি জমে গেছে।

সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন বলেন,  জোয়ারের কারণে নগরীর কয়েকটি এলাকায় পানি জমে গেছে।

আবহাওয়ার পূর্ভাবাসে বলা হয়েছে, উত্তর বঙ্গোপসাগরে মৌসুমী বায়ু প্রবল থাকার কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছে এসে সাবধানে চলাচল করতে  বলা হয়েছে।

এছাড়া ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ী এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধ্বসের সম্ভাবনা রয়েছে ।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পতেঙ্গা কার্যালয়ের পূর্ভাবাস কর্মকর্তা শেখ হারুনুর বলেন, আকাশে মেঘ থাকার কারণে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত রয়েছে।

You Might Also Like