হোম » জরুরি অবস্থাকালীন সরকারের নেয়া ১২ শ’ কোটি টাকা ব্যবসায়ীদের ফেরত দেয়ার নিদের্শ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট

জরুরি অবস্থাকালীন সরকারের নেয়া ১২ শ’ কোটি টাকা ব্যবসায়ীদের ফেরত দেয়ার নিদের্শ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট

ঢাকা অফিস- বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৬, ২০১৭

জরুরি অবস্থার তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নেয়া ১২ শ’ কোটি টাকা ফেরত দেয়ার নিদের্শ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নেয়া টাকা ফেরত দেয়ার ব্যাপারে হাইকোর্টের নিদের্শের বিরুদ্ধে করা বাংলাদেশ ব্যাংকের আপিল আজ বৃহস্পতিবার খারিজ করে দেয়া আপিল বিভাগ।

এর আগে বুধবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চ শুনানি শেষে আজ রায়ের জন্য এই দিন ধার্য করেন। বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর উল ইসলাম, আইনজীবী আহসানুল করিম ও ব্যারিস্টার খায়রুল আলম চৌধুরী। সরকার পক্ষে ছিলেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

হাইকোর্ট পৃথক আদেশে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নেয়া এই এক হাজার ২০০ কোটি টাকা ফেরত দিতে ২০১০ ও ২০১১ সালে নির্দেশ দিয়েছিলেন। পরে এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এসব আদেশের বিরুদ্ধে একসঙ্গে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানি শেষে আদেশের দিন ধার্য করা হয়।

জানা যায়, ২০০৭ সালের এপ্রিল থেকে ২০০৮ সালের নবেম্বর পর্যন্ত একটি গোয়েন্দা সংস্থা এবং তৎকালীন টাস্কফোর্স ইন্টেলিজেন্টস (টিএফআই) কর্মকর্তারা প্রায় ৪০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে এক হাজার ২৩২ কোটি টাকা আদায় করেন। এ টাকা দুই শতাধিক পে-অর্ডারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের ‘০৯০০ নম্বর’ হিসাবে জমা হয়।

তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৭ সালের ১৯ এপ্রিল জেমস ফিনলে কোম্পানির কাছ থেকে ১১৭ কোটি ৪১ লাখ টাকা আদায় করে। ওই টাকা ১৬টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের ‘কনসোলিটেড ফান্ডে’ জমা দেয়া হয়। এর পর ২২ এপ্রিল একই প্রতিষ্ঠানের নামে আরো ১৫টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে ১২০ কোটি ২৪ লাখ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা হয়। একই প্রক্রিয়ায় পর্যায়ক্রমে দেড় বছর ধরে বিভিন্ন তারিখে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের সংশ্লিষ্ট হিসাবে টাকা জমা হয়েছে।

ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পরিচয় ছাড়াও ‘অজানা’ উল্লেখ করেও জরুরি অবস্থার সরকারের প্রভাবশালী একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা ওই ব্যাংক হিসাবে চার দফায় প্রায় ৪৭ কোটি টাকা জমা দিয়েছেন।

দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের কাছ থেকে কয়েক দফায় বিপুল পরিমাণ টাকা আদায় করা হয়েছে ওই সময়। ২০০৭ সালের ২৮ মে থেকে ২০০৮ সালের ১১ জুন পর্যন্ত বসুন্ধরা গ্রুপের কাছ থেকে ২৫৬ কোটি টাকা নেয়া হয়।

২০০৭ সালের ১৯ জুন থেকে একই বছরের ২৭ নবেম্বর পর্যন্ত সিকদার গ্রুপের পরিচালক ও সদস্যদের পক্ষ থেকে পারভীন হক সিকদার বাধ্য হয়ে নয়টি পে-অর্ডারের মাধ্যমে মোট ৪২ কোটি টাকা পরিশোধ করেন বলে অভিযোগ আছে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ওই আমলে যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলের ৩০ কোটি, এমজিএইচ গ্রুপের ২৪ কোটি, বিএনপির সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামালের কাছ থেকে ২০ কোটি, কবির স্টিল মিলস লিমিটেডের সাত কোটি, ব্যবসায়ী নুর আলীর ৪০ কোটি ৫০ লাখ, আমিন মোহাম্মদ ফাউন্ডেশনের ৩২ কোটি ৫০ লাখ, সাগুফতা হাউজিংয়ের দুই কোটি ৫০ লাখ, হোসাফ গ্রুপ ১৫ কোটি, পারটেক্স গ্রুপের ১৫ কোটি, স্বদেশ প্রোপার্টিজের নয় কোটি, ইসলাম গ্রুপের ৩৫ কোটি, কনকর্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আট কোটি, ব্যবসায়ী রেজাউল করিমের ১৭ কোটি, আবু সুফিয়ানের ১৪ কোটি, শওকত আলী চৌধুরীর ছয় কোটি, আশিয়ান সিটির এক কোটি, পিংক সিটির ছয় কোটি ৪১ লাখ, বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এসোসিয়েশনের ১৯ কোটি ৪৫ লাখ, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের ১৫ কোটি, ওয়াকিল আহমেদের ১৬ কোটি, এবি ব্যাংক ফাউন্ডেশনের ৩২ কোটি, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের ২০ কোটি ৪১ লাখ, এলিট পেইন্টের ২৫ কোটি ৪৪ লাখ, এবি ব্যাংকের ১৯০ কোটি, কনকর্ড রিয়েল এস্টেটের সাত কোটি, জনৈক মালিকের কাছ থেকে চার কোটি ও ব্যবসায়ী আবদুল আউয়াল মিন্টুর দুই কোটি ২০ লাখ টাকা নেয়া হয়।