চড় মারায় স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা

চড় মারায় নাজমুল হাসান স্ত্রী নাসিমা আক্তার (৩০) ও ছেলে নাফিসকে হত্যা করেছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

বুধবার কুমিল্লার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন এ তথ্য জানান ।

কুমিল্লায় স্ত্রী নাসিমা আক্তার ও ছেলে নাফিস (দেড় বছর) হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত নাসিমার স্বামী নাজমুল হাসানকে (২৪) মঙ্গলবার রাঙামাটি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ ।

পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন বলেন, কোতোয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে আসামি নাজমুল হাসানকে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার মাইনামো লঞ্চঘাট থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। নাজমুল হাসান প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রী ও সন্তানকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

তিনি আরো বলেন, নাসিমার এটি দ্বিতীয় বিয়ে ও নাজমুলের তৃতীয় বিয়ে। নাজমুলের আগের দুই স্ত্রীর একজন মারা গেছেন, অন্যজন ডিভোর্স দিয়েছেন। নাজমুলের থেকে নাসিমা ৬ বছরের বড়। দাম্পত্য কলহ নিয়ে নাসিমা একদিন স্বামী নাজমুলকে চড় মারেন। সেই জেদ থেকে অফিসে থাকার জায়গা আছে বলে স্ত্রীকে বাড়ি থেকে এনে গলা টিপে হত্যা করেন। ধস্তাধস্তির সময় ছেলে নাফিস কেঁদে উঠলে তাকেও গলা টিপে হত্যা করেন নাজমুল।

প্রসঙ্গত, গত রোববার রাতে কুমিল্লা হাউজিং এস্টেটের মিম পেক্স এগ্রো কেমিক্যালসের সেপটিক ট্যাংক থেকে নাসিমা আক্তার ও তার দেড় বছর বয়সি ছেলে নাফিসের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নাসিমার গ্রামের বাড়ি বরুড়া উপজেলার কাদবা দেউড়া গ্রামে। স্বামী নাজমুল হাসানের বাড়ি কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বরকইট শ্রীমন্তপুর গ্রামে। নাজমুল ওই গ্রামের আবদুল মতিনের ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার হাউজিং এস্টেটের ওই মিম পেক্স এগ্রো কেমিক্যালসে নিরাপত্তাকর্মীর চাকরি নেন নাজমুল। শুক্রবার রাতে স্ত্রী নাসিমা ও ছেলে নাফিসকে ওই বাড়িতে নিয়ে আসেন। শুক্রবার রাতে তাদের হত্যা করে লাশ সেপটিক ট্যাংকে রেখে নাজমুল পালিয়ে যান।

You Might Also Like