চাঁপাইনবাবগঞ্জের ‘আস্তানায় জঙ্গি দম্পতি’, সোয়াত এলেই অভিযান শুরু

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার ত্রিমোহনী নামক এলাকায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) সদস্যরা।

শিবগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুল ইসলাম বলেন, বুধবার ভোর সাড়ে ৫টা থেকে বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়।

ইসলাম বলেন, কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে একতলা পাকা বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়েছে। আমরা তাদের সহায়তা করছি।
বাড়িটির ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়া হয় বলে তিনি জানান।

মানুষজনের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার জ্য সকাল থেকেই বাড়িটির আশেপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

সাংবাদিকরা জানান, বাড়িটির ভেতরে একজন দম্পতি এবং তাদের দুইটি শিশু সন্তান রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে তারা জানতে পেরেছেন। ভেতরে আরো ব্যক্তি থাকতে পারে বলেও পুলিশ ধারণা করছে।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে তারা জানান, বাড়িটিতে আবু নামের এক জঙ্গি এবং তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে রয়েছে বলে তারা সন্দেহ করছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার মাইনুল ইসলাম জানিয়েছেন, ভোরে মাইকে তাদের আত্মসমর্পণের আহবান জানানো হয়েছে। আশেপাশের আরো কয়েকটি বাড়ি থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

ঢাকা থেকে সিটিটিসি’র সোয়াত টিমের সদস্যরা এসে পৌঁছানোর পরপরই অভিযান শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সিটিটিসির উপসহকারী কমিশনার তৌহিদ হোসেন।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে সংবাদকর্মী আনোয়ার হোসেন জানান, বাড়ির মালিক সাইদুর রহমান ওরফে জেন্টু বিশ্বাস কয়েকমাস আগে স্থানীয় আবুকে কোন ভাড়া ছাড়াই ওই বাড়িতে থাকতে দেন। আবু সেখানকার বাজারে ব্যবসা করেন।

বুধবার ভোরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আরো কয়েকটি এলাকায় অভিযান চালানো হয় বলেও পুলিশ জানিয়েছে।

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি জেলায় এভাবে বাড়ি ঘেরাও করে রাখার পর ‘জঙ্গি আস্তানা’র সন্ধান পায় পুলিশ।

মঙ্গলবার রাজশাহীর একটি এলাকায় কয়েকটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চালিয়েছিল পুলিশ, যদিও সেখানে কোনো জঙ্গির সন্ধান পাওয়া যায়নি।

গত শনিবার ঝিনাইদহের একটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চালিয়ে বিপুল বিস্ফোরক ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ।

গত দুইমাসে জঙ্গি বিরোধী পুলিশের অভিযানে মোট ১৮জন নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে।

You Might Also Like