চট্টগ্রামে থামছইে না নাশকতা

জেলা ও মহানগর পুলিশের সর্বোচ্চ সতর্কতা, কঠোর নজরদারি, রেললাইন পাহারা ও র‌্যাব-বিজিবির টহল সত্ত্বেও চট্টগ্রামে যেন থামছেই না নাশকতা। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তাব্যবস্থার ফাঁক গলিয়ে একের পর এক নাশকতার ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে দুর্বৃত্তরা।

সবশেষ চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার বারতাকিয়া নামক এলাকায় রেললাইনের ফিশপ্লেট খুলে নেওয়ায় একটি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে চট্টগ্রামের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। একই ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ১০ ব্যক্তি। পুলিশ-আনসারের সার্বক্ষণিক টহল সত্ত্বেও কীভাবে এই নাশকতার ঘটনা ঘটল, তা নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ের স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ময়মনসিংহ থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখী ময়মনসিংহ এক্সপ্রেস মিরসরাইয়ের বারতাকিয়া এলাকা অতিক্রম করার সময় এর ইঞ্জিন ও দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়। দুর্বৃত্তরা রেললাইনের ফিশপ্লেট খুলে রাখায় এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে রেলওয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। সার্বক্ষণিক প্রহরা থাকা সত্ত্বেও কী করে দুর্বৃত্তরা এই নাশকতার ঘটনা ঘটিয়েছে, তা নিয়ে কিছুটা রহস্যেরও সৃষ্টি হয়েছে।
এর আগে শনিবার রাতে মিরসরাই উপজেলার হাইদকান্দি এলাকায় মহিউদ্দিন নামের এক যুবলীগ কর্মীর বাড়িতে ঢুকে তাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার পর, বাড়িতে আগুন দিয়ে তাকে নৃশংসভাবে পুড়িয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন নিহত মহিউদ্দিনের মা, ভাই-বোনসহ পরিবারের আরো চার সদস্য।
মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ ভূঁইয়া জানান, র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নিরাপত্তায় নজরদারি বাড়িয়ে দেওয়ার সুযোগে রেললাইনসহ প্রত্যন্ত গ্রামে নাশকতার ঘটনা ঘটাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। পুলিশ দ্রুত এসব ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হবে।

You Might Also Like