গ্রেপ্তারের নির্দেশ ‘স্বাধীনতার অপমান’: কাদের সিদ্দিকী

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেছেন, ‘যে ম্যাজিস্ট্রেট আমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে সে যেন বাংলাদেশের সকল মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে। এটা বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অপমান করা।’

মানহানির একটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিক্রিয়ায় বুধবার বিকেলে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাবর রোডে নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৩ সালের ৯ ফেব্র“য়ারি। আমি খুব সাহসের সঙ্গে একজন পাকিস্তানী দোসর ও গেজেটভূক্ত রাজাকারকে চিহ্নিত করে দিয়েছিলাম। তিনি ছিলেন, তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর। এরপর তিনি আমার বিরুদ্ধে মামলা করেন।’

‘সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয়, যে সরকার মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে, আমি সেই সরকারের সময়ে একজন রাজাকার চিহ্নিত করে দিলাম। এ জন্য আমার এই সরকারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ প্রাপ্ত ছিল।’

তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছে আমি আমার দলের পক্ষ থেকে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আমি অপেক্ষায় আছি। তারা কখন আসবে। আমাকে ধরে নিয়ে যাবে।’

মহিউদ্দিন খান আলমগীরকে উদ্দেশ কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘ওই সময় যারা পাকিস্তানি সরকারের প্রশাসনে ছিলেন তারা সবাই রাজাকার। কারণ, এখন যেমন এই সরকারের কথা মতো পুলিশ-র‌্যাবসহ সব আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চলছে তখনো সেটাই হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এখন দেড়টাকার রাজাকারদের বিচার হচ্ছে। কিন্তু ওই সময় পাকিস্তানের দোসর মখা আলমগীর দেশদ্রোহী রাজাকার আলবদর, আল-শামসদের সৃষ্টিকর্তা হলেও তার বিচার হচ্ছে না।’

একজন মুক্তিযোদ্ধাকে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে ভূলুণ্ঠিত করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

You Might Also Like