গজারিয়ায় ৪০০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র

এবার মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ৩০০ থেকে ৪০০ মেগাওয়াট সুপার ক্রিটিক্যাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ৩০০ একর জমিতে এ বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে।

ব্যয়বহুল বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণের লক্ষ্যে বিনিয়োগকারী অথবা উন্নয়ন সহযোগী সহজে পাওয়ার লক্ষ্যে প্রথমেই ভূমি অধিগ্রহণের কাজ করবে বিদ্যুৎ বিভাগ।

ইতোমধ্যেই প্রকল্পের প্রস্তাবনা পরিকল্পনা কমিশনের শিল্প ও শক্তি বিভাগে পাঠিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, ভূমি অধিগ্রহণের কাজটি আগেভাগে বাস্তবায়ন করলে উন্নয়ন সহযোগী সহজেই খুঁজে পাওয়া যাবে। এ লক্ষ্যে ৩০০ একর ভূমি অধিগ্রহণে ২৬৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা সরকারি তহবিল থেকে খরচ করা হবে।

মুন্সীগঞ্জে জমিও কেনা হচ্ছে চড়া দামে। ৩০০ একর জমি কিনতে খরচ করা হবে ২১৭ কোটি টাকা। ফলে একরপ্রতি জমি কিনতে প্রায় ৭৩ লাখ টাকা ব্যয় হচ্ছে।

ভূমি অধিগ্রহণের পাশাপাশি পুনর্বাসনের কাজও করা হবে। প্রকল্প এলাকায় প্রায় ৫০টি পরিবারকে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতি পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেবে সরকার।

শিল্প ও শক্তি বিভাগের (যুগ্ন প্রধান- বিদ্যুৎ উইং) খলিলুর রহমান খান বলেন, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ৩০০ থেকে ৪০০ মেগাওয়াট সুপার ক্রিটিক্যাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সরকারি তহবিল থেকে ২৬৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে। এখানে ব্যয়বহুল একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করবো। এ লক্ষ্যে প্রাথমিকভাবে ৩০০ একর ভূমি অধিগ্রহণ করবো। ভূমি অধিগ্রহণ করা গেলে সহজেই উন্নয়ন সহযোগী পাবো’।

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এ পরিকল্পনায় সবার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া ও ২৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্য পূরণে নতুন নতুন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

You Might Also Like