‘খোকা-মান্নার ফোনালাপের প্রথম লাশ অভিজিৎ’

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম মন্তব্য করেছেন, বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার ফোনালাপের প্রথম লাশ অভিজিৎ রায়।

নাসিম বলেন, ১৪ দল মনে করে মান্না-খোকা ফোনালাপে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) লাশ ফেলতে চেয়েছিলেন। তাই বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আমার দেশের ছেলেদের লাশের ওপর দিয়ে তারা ক্ষমতায় যেতে চায়। মান্না-খোকার ফোনালাপের প্রথম লাশ এই অভিজৎ।

ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শুক্রবার দুপুরে ১৪ দলের যৌথসভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতায় যাওয়ার যে চক্রান্ত চলছে তার মুখোশ আজকে উন্মোচিত হয়ে গেছে। ধর্মান্ধ শক্তি যে অভিজিৎ রায়ের হত্যাকাণ্ডে জড়িত এতে কোনো সন্দেহ নেই। এই ধরনের হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে তারা শুধু ৭১’র ঘাতকদের রক্ষাই নয়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারও বানচাল করতে চায়। এই খুনীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতা হস্তান্তরে আমরা বিশ্বাস করি। কোনোভাবেই বিশ্বাস করি না যে, অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক শক্তি রক্তের মাধ্যমে ক্ষমতার পরিবর্তন ঘটাবে। এ ব্যাপারে ১৪ দল সতর্ক আছে।

নাসিম অভিযোগ করেন, সেনাবাহিনীকে উস্কানি দেওয়ার চক্রান্ত চলছে। এটা আজ উন্মোচিত হয়ে গেছে। ১৪ দল কোনোভাবেই কোনো অসাংবিধানিক শক্তির উত্থান হতে দিবে না।

আওয়ামী লীগ এই নেতা বলেন, যারা অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতায় যেতে চায়, তাদের রুখতে হবে। তা না হলে গণতন্ত্র থাকবে না। এদের রুখতে হবে।

তিনি বলেন, এদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলন ধ্বংসের জন্য যদি কেউ দায়ী থাকেন তাহলে সে খালেদা জিয়া। আইন- বিশ্ব ইজতেমা ও শিশুদের পরীক্ষা কোনো কিছুই সে মানে না।

নাসিম বলেন, তার (খালেদা) করুণ পরিণতির জন্য আর কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শরীফ নূরুল আম্বিয়া, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আহমদ হোসেন, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুর রহমান সেলিম প্রমুখ।

You Might Also Like