খাগড়াছড়ির রামগড়ে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা

খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলায় রাশেদা আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার মধ্যম বলিপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ির বাইরে থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ সময় নিহতের স্বামী ওমর ফারুক (২৮)কে অজ্ঞান অবস্থায় রামগড় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, মঙ্গলবার ভোররাতে সোনাইপুল বাজারের ফল ব্যবসায়ী বলিপাড়ার ফারুক ও তার পরিবারের সদস্যদের ডাকাত ডাকাত বলে আত্মচিৎকারে এগিয়ে গেলে ঘরের বাইরে ফারুকের স্ত্রীর অর্ধ উলঙ্গ গলাকাটা রক্তাক্ত লাশ এবং বাড়ির সামনে অজ্ঞান অবস্থায় স্বামী ফারুককে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

পরে পুলিশকে খবর দেয়া হলে লাশটি উদ্ধার করে এবং ফারুককে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। ৩ বছর আগে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ১৮ মাস বয়সী একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

পারিবারিক কলহে মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ জানিয়ে নিহতের পিতা দেলোয়ার হোসেন জানান, ব্যবহৃত গহনা ও গরু বিক্রি করে ব্যবসার জন্য টাকা যোগাড়ের অজুহাতে মেয়ের সঙ্গে স্বামী ও তার পরিবারের দ্বন্দ্ব চলছিল। এ সব বিষয়ে গত ৩ মাস আগে সামাজিকভাবে একবার বিচারও হয়েছিল। সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করলে মেয়ে হত্যার আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে। তিনি মেয়ে হত্যার বিচার দাবি করেছেন।

রামগড় সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈয়দ মোহাম্মদ ফরহাদ জানান, প্রাথমিক আলামতে বহিরাগত সম্পৃক্ততার কিছু পাওয়া যায়নি। তবে হত্যাকাণ্ডের পেছনে পারিবারিক সংশ্লিষ্টতার আলামত পাওয়া গেছে। তদন্তে বিস্তারিত জানা যাবে। মেয়ের পিতা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়িতে পাঠানো হয়েছে।

You Might Also Like