ক্লিনিকে জীবিত ছেলের পরিবর্তে মৃত মেয়ে দেয়ার অভিযোগ

রাজধানীর মোহাম্মদপুর বেসরকারী ক্লিনিক ‘মোহাম্মদপুর ফার্টিলেটি সার্ভিস এন্ড ট্রেনিং সেন্টার’ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে জীবিত ছেলে শিশুর পরিবর্তে মৃত মেয়ে শিশু দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় রোগীর স্বজন ও হাসপাতাল সংশ্লিষ্টদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামালউদ্দিন বলেন, ওই ক্লিনিকে রোগী ও কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ঝামেলা হয়েছে। ঘটনাস্থলে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গেছে। আরো খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

মোহাম্মদপুর ফার্টিলিটি সার্ভিস অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার ক্লিনিকটি রেসিডেনশিয়াল স্কুল অ্যান্ড মডেল কলেজের সামনে অবস্থিত।

নবজাতকের বাবা শামসুল ইসলাম বুলু অভিযোগ করেন, আমার স্ত্রী জীবিত ছেলে শিশুর জন্ম দিয়েছে। কিন্তু ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ওই শিশু পরিবর্তন করে মৃত মেয়ে শিশু দেখাচ্ছে।

বুলু আরও অভিযোগ করে বলেন, আমি গরিব-নিরীহ মানুষ। হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সরা আমার ছেলে বাচ্চাটারে লুকায় ফালাইছে। মরা একটা মেয়ে বাচ্চাকে বলে এটা আপনার বাচ্চা। অথচ এর আগে কয়েকবার আমার বৌ’র আল্ট্রাসনোগ্রাম করাইলে প্রত্যেকবার ডাক্তার বলছে আমার ছেলে সন্তান হবে।

তিনি বলেন, আমাদের বাসা মোহাম্মদপুরের বছিলা এলাকায়। সকালে স্ত্রী পারভীনের প্রসব ব্যথা উঠলে দ্রুত এ হাসপাতালে নিয়ে আসি। পরে ভেতর থেকে এক নার্স এসে আমাকে জানায় আমার ছেলে সন্তান হয়েছে। আমার সঙ্গে দু’জন আত্মীয় ছিলেন। তারা সার্বক্ষণিক অপারেশন থিয়েটারের বাইরে ছিলেন।

বুলু জানান, বাচ্চা প্রসবের পর কয়েকজন নার্স এসে আমাকে বলে কাগজে লেখা ওষুধগুলো নিয়ে আসেন। পরে তাদের মধ্যে এক নার্স আমার ওই দুই আত্মীয়কে বলে, আপনারা আমার সঙ্গে আসেন। কিছুক্ষণ পর আমি ওষুধ নিয়ে আসলে অপারেশন থিয়েটারের ভেতর থেকে আমাকে জানানো হয়, আপনার মরা মেয়ে বাচ্চা হইছে। আমাদের কিছু করার নাই।

বুলু বছিলা এলাকায় লেপ-তোষকের ব্যবসা করেন। স্কুল পড়ুয়া ৯ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে তার।

You Might Also Like