ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলা: প্রতিরোধকারীর মৃত্যু

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদের হামলার প্রতিরোধকারী নাইম রশিদকে অনেক চেষ্টা করেও বাঁচানো যায়নি। তার মৃত্যুর মধ্য দিয়ে দুই মসজিদে হামলার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০ জনে।

রশিদ যদি অসীম সাহস দেখিয়ে হামলাকারীকে না জড়িয়ে ধরে রাখতেন তাহলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারতো। তার চাপে পড়েই হাত থেকে অস্ত্র ফেলে দেন মসজিদে হামলাকারী অস্ট্রেলীয় ব্রেনটন ট্যারেন্ট।

ওই ঘটনার বর্ণনায় ভারতীয় বংশোদ্ভূত ফয়জল সৈয়দ জানান, মসজিদে গুলিবৃষ্টির মধ্যেই ‘জনৈক ব্যক্তি’ছুটে এসে সন্ত্রাসীকে জাপটে ধরেন। বন্দুক না নামানো পর্যন্ত হামলাকারীকে চেপে ধরে রাখেন রশিদ।

ফয়জল জানান, তিনি যে বেঁচে গেছেন তা ওই মানুষটির জন্যই। তাকে খুঁজে পেতে চান তিনি।

পাকিস্তানের অ্যাবটাবাদ থেকে আসা নাইম রশিদ পেশায় একজন শিক্ষক ছিলেন। আল নূর মসজিদে হামলার ভিডিওর একটি অংশে দেখা গেছে, গুলিবিদ্ধ হবার আগে হামলাকারীকে বাধা দেবার চেষ্টা করেন রশিদ। তিনি গুরুতরভাবে আহত হয়েছিলেন। হাসপাতালে নেয়া হলে তার মৃত্যু হয়। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে।

ওই ঘটনার পর রশিদকে সবাই বীর হিসেবে দেখছেন। তার ভাই খুরশিদ রশিদ জানিয়েছেন, ভিডিওটি দেখার পর তার সাহসী ভূমিকার জন্য তারা গর্বিত।

মসজিদে হামলার ঘটনায় রশিদের ২১ বছর বয়সি ছেলে তালহাও নিহত হয়েছেন। তালহা সম্প্রতি নতুন একটি চাকরি পেয়েছিলেন এবং শিগগিরই তার বিয়ে করার কথা ছিল।

উল্লেখ্য, শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে বন্দুকধারীদের হামলায় এখন পর্যন্ত ৫০ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও প্রায় অর্ধশত।

You Might Also Like