কোয়ারেন্টাইনে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো!

জুভেন্টাস ডিফেন্ডার ড্যানিয়েল রুগানির শরীরে বাসা বেঁধেছে করোনাভাইরাস। এতে শুধু তিনিই নন, তার সঙ্গে সপ্তাহখানেক যারা ছিলেন তাদেরও থাকতে হবে আইসোলেশনে। তার সতীর্থ ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও আছেন এর মধ্যে। পর্তুগিজ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, পর্তুগালের মাদেইরাতে নিজ বাসায় কোয়ারেন্টাইনে আছেন সিআরসেভেন।

এ মাসের শুরুতে মা দোলোরেস আভেইরো স্ট্রোক করলে তাকে দেখতে দেশে ফেরেন রোনালদো। কয়েক দিন পর তুরিনে ইতালিয়ান ডার্বি খেলতে ক্লাবে যোগ দেন। গত রবিবার রুদ্ধদ্বার তুরিন স্টেডিয়ামে ইন্টার মিলানের বিপক্ষে খেলেন তিনি। আর ওই ম্যাচেই বেঞ্চে ছিলেন রুগানি। মিরালেম পিজানিচের ইনস্টাগ্রাম পোস্টের ছবিতে ড্রেসিংরুমে রোনালদোদের সঙ্গে রুগানিকে উদযাপন করতে দেখা গেছে।

ম্যাচ শেষেই দেশে ফিরে যান রোনালদো। এরপরই জানতে পারলেন তার এক সতীর্থ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী, রুগানির সঙ্গে থাকা প্রত্যেককে আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে। রোনালদোকেও ইতালিতে না ফিরে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পর্তুগালের দুই পত্রিকা কুয়োতিদিয়ানো স্পোর্তিভো ও আবোলা’র ফ্রন্ট পেজের শিরোনাম ছিল- ‘কোয়ারেন্টাইনে রোনালদো’।

অন্তত ৩ এপ্রিল পর্যন্ত ইতালি সব ধরনের খেলা বন্ধ করে দিয়েছে। তবে আগামী মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে লিওঁর বিপক্ষে রুদ্ধদ্বার স্টেডিয়ামে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রুদিগারের সঙ্গে থাকা প্রত্যেকে আইসোলেশনে গেলে ম্যাচটি স্থগিতের বিকল্প নেই উয়েফার সামনে।

হ্যানোভারের ডিফেন্ডার টিমো হিউবার্সের পর দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে করোনায় আক্রান্ত হওয়া রুগানি টুইটারে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন, ‘আপনারা খবরটা জেনেছেন। আমাকে নিয়ে যারা দুশ্চিন্তা করছেন তাদের সবাইকে নিশ্চিত করছি যে আমি ভালো আছি। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান করছি। কারণ এই ভাইরাসের কোনও ভেদাভেদ নেই। চলুন আমাদের জন্য, আমাদের ভালোবাসার মানুষটার জন্য ও আশেপাশে যারা আছে তাদের সবার জন্য এটা (আইসোলেশন) করি।’

You Might Also Like