কেন্দুয়ায় স্ত্রীর পরকীয়ায় স্বামীকে হত্যার অভিযোগ

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় বিয়ের ছয় মাসের মধ্যে স্ত্রী সোনিয়া আক্তারের (২৩) পরকীয়া প্রেমিক মোস্তফার (৩৫) হাতে স্বামী জামরুল ইসলাম (২৫) নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, কান্দিউড়া ইউনিয়নের তারাকান্দি গ্রামের রবু মিয়ার ছেলে জামরুল ও পৌর এলাকার টেঙ্গুরী গ্রামের হাবি মিয়ার মেয়ে সোনিয়ার ছয় মাস পূর্বে বিবাহ হয়।

দাম্পত্য জীবন শুরু থেকেই স্ত্রীর পরকীয়ায় স্বামী-স্ত্রী দু’জনের দ্বন্দ্ব চলে আসছিল বলে জানিয়েছেন নিহত জামরুল এর বাবা আব্দুল হেলিম বয়াতি।

কেন্দুয়া কান্দিউড়ার ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল হক কনক বলেন, সোনিয়া তার স্বামীর বাড়ি ছেড়ে সান্দিকোনা ইউনিয়নে ডাউকি গ্রামের ডেন্ডু মিয়ার ছেলে প্রেমিক মোস্তফার বাড়িতে থাকতেন। মোস্তফা ও সোনিয়া পরামর্শ করে স্বামী জামরুলের কাছে মোবাইল ফোনে ২০ হাজার টাকা দাবি করে।

মোস্তফা বলেন, দাবিকৃত টাকা দিতে পারলেই জামরুল তার স্ত্রী সোনিয়াকে ফেরত পাবে। জামরুল স্ত্রীকে ফেরত পাওয়ার আশায় ৪ আগস্ট মোস্তফার বাড়িতে যায়। এ সময় মোস্তফা টাকা হাতে পেয়ে বিভিন্ন নাটকীয়তা করে জামরুলকে মিথ্যে অপবাদে চোর সাবস্ত্য করার পর রাতে তাকে বেধরক মারপিট করে। ওই রাতেই গ্রামবাসী সোনিয়া ও মোস্তফার পরকীয়া প্রেমের বিষয়টি ধরে ফেলেন ও গ্রাম্য শালিসে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করেন। কিন্তু জামরুল তাদের শাস্তি না দিয়ে মাফ করে দেয়। এ দিকে ওই রাতের মারপিটে আহত হওয়ার পর থেকে শারীরিক বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছিলেন জামরুল।

বুধবার দিবাগত রাতে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু হয়।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অভিরঞ্জন দেব অভিযোগের ব্যাপারে বলেন বিষয়টি আমরা শুনেছি তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জামরুল এর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠান হয়েছে।

You Might Also Like