কুর্দী শিশুর ৪০০ আইএস জঙ্গি বধের ভিডিও!

সম্প্রতি মেশিনগান হাতে এক কুর্দী মেয়ে শিশুর একটি ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটিতে গোলাপী পোশাক পরিহিত ওই কুর্দী শিশুটিকে ক্যামেরার পেছনে থাকা এক লোকের উদ্দেশে বলতে শোনা গেছে, সে ৪০০ জন আইএস জঙ্গিকে হত্যা করেছে। আর তার সঙ্গে থাকা ওই পুরুষ তাকে ‘মারো, মারো’ বলে উৎসাহিত করছেন। আর এরপরই ওই শিশুটিকে তার সঙ্গে থাকা মেশিনগান থেকে আইএস জঙ্গিদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে দেখা গেছে। উল্লেখ্য, কুর্দীরা তাদের নারী যোদ্ধাদের জন্য জগদ্বিখ্যাত। অন্যদিকে, আইএস জঙ্গিরা শিশুদের অপব্যবহারের জন্য কুখ্যাত।

মাত্র ৬-৭ বছর বয়সী ওই শিশুটিকে একটি বিশাল মেশিনগানের পেছনে উজ্জ্বল গোলাপি জাম্পার পরে বসে থাকতে দেখা গেছে। তার পেছনে ক্যামেরার বাইরে দাঁড়িয়ে ছিল তার প্রশিক্ষক। মরুভুমিতে তার প্রশিক্ষণ চলছিল।

এসময় তার প্রশিক্ষক তাকে জিজ্ঞেস করছিল, সে কয়জন আইএস জঙ্গিকে হত্যা করেছে। উত্তরে সে চারটি আঙ্গুল দেখিয়ে ৪০০ জনকে হত্যার কথা জানিয়ে গর্ব প্রকাশ করছিল।

এরপর ওই লোকটি তাকে ‘মারো, মারো’ বলে উৎসাহ দিলে সে পুনরায় মরুভুমিতে সামনের দিকে তাক করে রাখা মেশিনগান দিয়ে ফায়ার করতে থাকে। তবে সে ঠিক কিসের উদ্দেশে গুলি করছিল তা ওই ভিডিও দেখে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

‘ইয়াং ওয়াইপিজি গার্ল শুটস পিকে মেশিনগান’ শিরোনামে ভিডিওটি গত জানুয়ারি মাসেই ইন্টারনেটে পোস্ট করা হয়। কিন্তু মাত্র কয়েকদিন আগে ভিডিওটি অনলাইন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়।

ওয়াইপিজি কুর্দিদের গণপ্রতিরক্ষা ইউনিটের নাম। সংগঠনটি গতবছর আইএস এর আবির্ভাবের পর থেকেই জঙ্গি সংগঠনটির বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে।

উল্লেখ্য, আইএস জঙ্গিরা হত্যাযজ্ঞ, যুদ্ধ এবং আত্মঘাতি হামলায় শিশুদের অপব্যবহার করার জন্য কুখ্যাত। অন্যদিকে, কুর্দিরা তাদের শিশুদের যুদ্ধ ময়দানের বাইরে নিরাপদেই রাখেন।

আইএস প্রকাশিত একটি লোমহর্ষক ভিডিওতে দেখা গেছে, এক শিশুকে দিয়ে তারা তথাকথিত এক গুপ্তচরকে হত্যা করছে। এছাড়া কাজাখস্তানে জঙ্গি প্রশিক্ষণরত শিশুদের কয়েকডজন ভিডিও ছেড়েছে আইএস।

অন্যদিকে, কুর্দিরা তাদের নারী যোদ্ধাদের জন্য বিখ্যাত। আর নারী যোদ্ধারা আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কুর্দিদের গুরুত্বপূর্ণ সামরিক ও নৈতিক অস্ত্র হিসেবেও বিবেচিত হয়। কারণ আইএস জঙ্গিদের বিশ্বাস হল- তারা যদি শত্রুপক্ষের কোনো নারী যোদ্ধার হাতে নিহত হয় তা তাদের জন্য খুবই অবমাননাকর। এমনকি এতে তারা শহীদি মর্যাদা থেকেও বঞ্চিত হবে এবং বেহেশতে পুরস্কার হিসেবে ৭২ জন কুমারী হুরী পাওয়া থেকেও বঞ্চিত হবে!

আর এর ফলেই আইএস জঙ্গিরা কুর্দিদের ওমেনস প্রটেকশন ইউনিট বা ওয়াইপিজের সদস্যদের সঙ্গে যুদ্ধের ময়দানে লড়াই করা নিয়ে নিজেদের মাঝে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। এমনকি বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের জেরে শেষ পর্যন্ত তারা সিরিয়ার কুর্দি শহর কোবানি থেকেও পিছু হটে।

You Might Also Like