কিউবায় আড়িপাতার কেন্দ্র বসাবে রাশিয়া

আমেরিকার বিরুদ্ধে গোয়েন্দা তৎপরতা চালানোর জন্য কিউবায় আবার একটি আড়িপাতার কেন্দ্র  চালু করবে রাশিয়া। রাজধানী হাভানার কাছে লোরডেসে ১৯৬৭ সালে একটি আড়িপাতার কেন্দ্রটি  স্থাপন করেছিল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন। কেন্দ্রটিতে সে সময় প্রায় তিন হাজার কর্মী আমেরিকার বিরুদ্ধে আড়িপাতার কাজে নিয়োজিত ছিল।

সম্প্রতি হাভানা ও মস্কোর মধ্যে স্বাক্ষরিত একটি চুক্তি অনুযায়ী কেন্দ্রটি আবার চালু করা হবে।  আমেরিকার মূল ভূখণ্ড থেকে কেন্দ্রটি মাত্র ২৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

গত সপ্তাহে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কিউবা সফরের সময় লোরডেসের কেন্দ্রটি আবার চালু করার বিষয়ে কিউবা সরকারের সঙ্গে রাশিয়ার ওই চুক্তি সই হয়। অবশ্য কেন্দ্রটি আবার কবে চালু করা হবে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি।  লোরডেসে বর্তমানে কিউবা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য-বিজ্ঞান শাখা রয়েছে।

অতীতে এ কেন্দ্র থেকে আমেরিকার বেশিরভাগ যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপর আড়িপাততে পারতো মস্কো। ফ্লোরিডার মার্কিন মহাকাশ স্থাপনা এবং মার্কিন  মহাকাশযানের মধ্যে যে সব গোপন বার্তা চালাচালি হতো তাও ধরতে পারতো এ কেন্দ্রটি। এ কেন্দ্র চালু থাকায় কিউবার তৎকালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাহুল কাস্ত্রো ১৯৯৮ সালে একবার গর্ব করে বলেছিলেন, আমেরিকার ৭৫ শতাংশ সিগন্যাল ধরতে পারে তার দেশ। অবশ্য এ কথায় কিছুটা অত্যুক্তি থাকলেও তা একেবারে মিথ্যা বাগাড়ম্বর নয় বলে বিশেষজ্ঞরা মন্তব্য করেছিলেন।

সোভিয়েত ইউনিয়ন বিলুপ্ত হওয়ার পর আর্থিক সংকটের মুখে ২০০৪ সালে কেন্দ্রটি বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছিল রাশিয়া। এর আগে, ২০০১ সালে ভিয়েতনামের কামরানের আড়িপাতার কেন্দ্রও বন্ধ করে দিয়েছিল রাশিয়া।

অত্যাধুনিক আড়িপাতার যন্ত্রগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে অনেক কাজ করতে পারে। কাজেই আড়িপাতার কেন্দ্র হিসেবে কাজ করার জন্য লোরডেসে অতীতের মতো ব্যাপক সংখ্যক লোকবল নিয়োগ করতে হবে না। লোরডেসের কেন্দ্রটি আবার চালু হলে পশ্চিম গোলার্ধে রাশিয়ার আড়িপাতার সক্ষমতা অনেক গুণ বাড়বে।

You Might Also Like