কাশ্মিরে হামলার প্রতিবাদ: সার্ক শীর্ষ সম্মেলন বয়কট করছে ভারত

কাশ্মিরের উরি সেনা ব্রিগেড সদর দপ্তরে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে ইসলামাবাদে নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় সার্ক সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সার্কের বর্তমান চেয়ারম্যান নেপালকে লেখা চিঠিতে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, “আন্তঃসীমান্তে সন্ত্রাসী হামলা বৃদ্ধি এবং রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ কাজে একটি দেশ অব্যাহত হস্তক্ষেপ করে ১৯তম সার্ক সম্মেলনে সফলে অসহযোগিতা করছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারত সরকার এ সম্মেলনে অংশ নিতে অপারগ।”

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বিকাশ স্বরূপ এক টুইটার বার্তা বলেন, সার্কের সভাপতি দেশ নেপালকে ভারত জানিয়েছে এ অঞ্চলে আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসী হামলা বেড়ে যাওয়ায় এবং সদস্য দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে একটি দেশের হস্তক্ষেপ বেড়ে যাওয়ায় এমন এক পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে, যা নভেম্বরে ইসলামাবাদে সার্ক শীর্ষ সম্মেলন আয়োজনের জন্য সহায়ক নয়। আঞ্চলিক সহযোগিতা, কানেকটিভিটি ও যোগাযোগের ব্যাপারে ভারত তার অঙ্গীকারের ব্যাপারে অবিচল আছে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে ভারতের পক্ষে ইসলামাবাদে অনুষ্ঠেয় শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেয়া সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, “আমরা বুঝতে পারছি সার্কের আরও কয়েকটি দেশ ইতোমধ্যেই সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে তাদের আপত্তির কথা জানিয়ে দিয়েছে।”

এদিকে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাফিস জাকারিয়া তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, সার্ক সম্মেলনে যোগ না দেয়ার ব্যাপারে ভারতের মুখপাত্রের টুইট তারা দেখেছেন। তবে এ ব্যাপারে ভারত আনুষ্ঠানিকভাবে পাকিস্তানকে কিছু জানায় নি। ভারতের এই ঘোষণাকে দুর্ভাগ্যজনক বলে উল্লেখ করে তিনি।

ভারতের এনডিটিভি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও ভুটানও সার্ক সম্মেলন বয়কটের সংকেত দিয়েছে।

৯ ও ১০ নভেম্বর পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের সমন্বয়ে গঠিত সার্কের শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ভারত যোগ না দেয়ায় স্বাভাবিকভাবেই এবারের সার্ক সম্মেলন বাতিল হয়ে যাচ্ছে। কারণে সার্ক-এর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, কোনো একটি সদস্য দেশ সম্মেলনে অংশ নিতে অস্বীকার করলেই সম্মেলন বাতিল হয়ে যায়।

গত আগস্টে সার্ক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন হয় পাকিস্তানে। তাতে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যান নি। একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচারকে কেন্দ্র করে পাকিস্তান-বাংলাদেশের টানাপড়েন তীব্র হওয়ায় ইসলামাবাদ-ঢাকা সম্পর্ক তলানিতে। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে পাকিস্তান নাক গলাচ্ছে বলে অভিযোগ করছে বাংলাদেশ। এর প্রতিবাদ জানাতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে না পাঠিয়ে আমলাদের পাঠিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে, ওই বৈঠকে অংশ নিতে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ইসলামাবাদ গিয়েছিলেন। কিন্তু এবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নেয়ায় স্বাভাবিকভাবে বাতিল হয়ে যাচ্ছে সার্ক শীর্ষ সম্মেলন।#

পার্সটুডে

You Might Also Like