করোনা সন্দেহ: রাতের আঁধারে নারীকে জঙ্গলে ফেলে পালালেন স্বামী-সন্তান

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এক নারীকে রাতের অন্ধকারে টাঙ্গাইলের সখীপুরে জঙ্গলে ফেলে পালিয়ে গেছেন স্বামী ও তার সন্তানরা।

সোমবার গভীর রাতে উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের ইছাদিঘী গ্রামের জঙ্গল থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার সকালে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে।

ওই নারীর নাম মাজেদা বেগম (৫০)। তার বাড়ি শেরপুরের নালিতাবাড়ি উপজেলায়। তার স্বামী-সন্তান গাজীপুরের সালনায় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

জানা গেছে, গভীর রাতে উপজেলার ইছাদিঘী গ্রামের জঙ্গল থেকে ওই নারীর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে যান। এরপর স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে জানালে রাতেই তাকে উদ্ধার করে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মান্না মিঞা ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ জানান, জঙ্গলে অপরিচিত ওই নারীর চেচামেচির শব্দ শুনে স্থানীয়রা বিষয়টি তাদের জানায়। পরে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসিকে অবগত করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, সোমবার রাত দেড়টার দিকে পুলিশ ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসারসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীর পরিচয় জানেন। ওই নারীর বাড়ি শেরপুর জেলার নালিতাবাড়িতে। তার স্বামী-সন্তান গাজীপুরের সালনায় পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

তার স্বামী-সন্তান ও স্বজনরা রাতে করোনা সন্দেহে তাকে জঙ্গলে সখীপুরের ইছাদিঘী এলাকায় একটি সামাজিক বনের ভেতর ফেলে রেখে পালিয়ে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহীনুর আলম জানান, ওই নারীর জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও গলাব্যথা রয়েছে। করোনার উপসর্গ থাকায় রাতেই তাকে এ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে।

You Might Also Like