করোনা রোগী পালানোর পর আটক করে হাসপাতালে ভর্তি

করোনা শনাক্তের পর রোগী বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলে পুলিশ আটক করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে। লকডাউন করা হয়েছে মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার শিকারমঙ্গল ইউনিয়ন।

শিকারমঙ্গল ইউনিয়নের ইছাগুড়া গ্রামের আলমগীর বেপারী নামে ওই ব্যক্তির শরীরে শনিবার করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর রাতে পালিয়ে যায়।

জানা গেছে, সম্প্রতি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আলমগীরসহ শতাধিক লোক নারায়নগঞ্জ থেমে নিজ এলাকায় আসে। নারায়নগঞ্জে কর্মরত শতাধিক লোকসহ রাতে নৌকা ভাড়া করে এসেছে বলে জানা গেছে।

গত কয়েক দিন ধরে তার শরীরে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন নমুনা সংগ্রহ করে। শনিবার সন্ধ্যায় করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি জানাজানি হলে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় আলমগীর। পরে শনিবার রাতে পুলিশের অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে এবং কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। এই ঘটনায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। এদিকে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় কালকিনির শিকারমঙ্গল ইউনিয়ন লকডাউন করা হয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, আলমগীরের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পরে স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশের সহায়তায় তাকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও তার পরিবারের অন্য সদস্যদের মাঝে সংক্রমিত হয়েছে কি না সেটা জানার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এই ইউনিয়নটি ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় সম্পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।