করোনায় অর্থ সংকটের মুখে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

করোনার কারণে বিশ্বজুড়ে ক্রীড়াঙ্গন একদম থমকে আছে। আর্থিকভাবে বিশাল অঙ্কের ক্ষতির সামনে পড়েছে ক্রিকেট, ফুটবল এমনকি অলিম্পিকও। এদিকে ফুটবলের বিভিন্ন ক্লাব তাদের খেলোয়াড়দের বেতন কেটে রেখেছে নিজেদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে। ক্রিকেটে এখন সে চিত্র দেখা যায়নি।

তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, আর্থিক সঙ্কটের সামনে রয়েছে তারা। যে অবস্থায় আছে দেশের ক্রিকেট, এমন চলতে থাকলে আগস্টের শেষে এসে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অনেক কর্মকর্তার চাকরি চলে যাবে। অনেকের বেতন কাটতে হতে পারে, যা এখন থেকে চালু করেছে তারা। তবে এখনো ক্রিকেটারদের বেতন কাটা নিয়ে কিছু বলেনি বোর্ড। এমন তথ্য জানিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান পরিচালক কেভিন রবার্টস।

ইতিমধ্যে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া পরিকল্পনা করেছে জুনের ৩০ তারিখ পর্যন্ত সবার ২০ শতাংশ করে বেতন দেওয়া হবে। এরপরের অবস্থার উপর পরবর্তী পরিকল্পনা নির্ভর করছে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ায় এখন পর্যন্ত সাড়ে ছয় হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে আছে। মারা গেছে ৬৫ জনের মতো। ফলে দেশটিতে লকডাউন চলছে। এমন অবস্থায় দেশটিতে সকল প্রকার খেলাধুলা বন্ধ। এদিকে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া করোনার কারণে সে দেশের শেয়ার মার্কেটে বিপুল পরিমাণ অর্থ হারিয়েছে।

এদিকে এই বছর অস্ট্রেলিয়ায়া বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর। দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের আশা ছিল, অক্টোবর-নভেম্বরের এই আসরের মধ্য দিয়ে বিপুল অর্থ জমা হবে তাদের বোর্ডের কোষাঘারে। একইভাবে ভারতও আসবে অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট ম্যাচ খেলতে। সে সিরিজ ঘিরেও অর্থ আয়ের আশা ছিল বোর্ডের। তবে করোনায় এখন সব থমকে গেছে। ফলে নিজেদের টিকিয়ে রাখতে স্টাফদের বেতন কম দেওয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে ক্রিকেট বোর্ড। এমনকি জাতীয় দলে কোচ জাস্টিন ল্যাঙারও এখন পার্ট-টাইমার কোচ হিসেবে আছেন তাদের সঙ্গে।

কেভিন রবার্টস বলেন, ‘করোনার ফলে সৃষ্ট বিপর্যয়ের বিষয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া সচেতন আছে। আর এই বিষয়ে সৃষ্ট সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। কিভাবে কী করা যায় সে পরিকল্পনা করছে। আমরা সরকার, মেডিকেল টিম সবার সাথে কথা বলছি। শারীরিক সুরক্ষা নিশ্চিত করে আমরা দ্রুতই আমাদের স্বাভাবিক কাজে ফিরতে চাই।’

You Might Also Like