হোম » এবার ভোটযন্ত্র নিয়ে বিএনপির ভয়!

এবার ভোটযন্ত্র নিয়ে বিএনপির ভয়!

সোহরাব হাসান- Saturday, February 18th, 2017

.পৃথিবীতে যত আশ্চর্য ঘটনা আছে, তার মধ্যে প্রায় সব বিষয়ে বাংলাদেশে সরকার ও বিরোধী দলের বিপরীতমুখী অবস্থান অন্যতম। আওয়ামী লীগ যদি বলে সূর্য পূর্ব দিকে উদিত হয়, বিএনপি তাতে সন্দেহ করবে। আর বিএনপি যদি বলে পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরে, আওয়ামী লীগ তার মধ্যেও ষড়যন্ত্র খুঁজবে।
নির্বাচনে এত দিন বিতর্কের বিষয় ছিল মানুষ তথা নির্বাচন কমিশন, নির্বাচনকালীন সরকার এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ। এবার যুক্ত হয়েছে ভোটযন্ত্র। আগামী নির্বাচনে ভোটযন্ত্র ব্যবহার করা হবে কি হবে না, সে নিয়ে প্রধান দুই দলের মধ্যে বাহাস শুরু হয়েছে। এর আগে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স ব্যবহার নিয়েও আমাদের বিজ্ঞ সরকারি দল ও প্রাজ্ঞ বিরোধী দলের মধ্যে বিস্তর বাদানুবাদ চলছিল। লোহার ব্যালট বাক্সটি থাকবে, না তার পরিবর্তে প্লাস্টিকের স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স আনা হবে, তা ছিল বিতর্কের বিষয়। বিএনপি মনে করত, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স হলেই সরকারি দলের জন্য ভোট কারচুপি সহজ হবে (বরং উল্টোটা হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি)। তারা এই অজুহাতে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন পর্যন্ত বর্জন করেছিল। যদিও বিএনপির নেতা মনিরুল হক সাক্কু স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে জয়ী হন এবং বিএনপি পরে তাঁকে সাদরে গ্রহণও করে। এখন আর স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স বিতর্কের বিষয় নয়।
কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশন দায়িত্ব না নিতেই নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে ভোটযন্ত্র নিয়ে। আগামী নির্বাচন মামুলি ধারায় চলবে না যান্ত্রিক পদ্ধতিতে হবে? এ ব্যাপারে দুই পক্ষ পরস্পরবিরোধী অবস্থানে। আওয়ামী লীগ নীতিগতভাবে যান্ত্রিক পদ্ধতি তথা ভোটযন্ত্র ব্যবহারের পক্ষে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানুষের ভোটাধিকার অধিকতর সুনিশ্চিত করার স্বার্থে আগামী নির্বাচনে ই-ভোটিং প্রবর্তন করার পরিকল্পনা বিবেচনায় নেওয়া যেতে পারে।
প্রথম আলোর খবর অনুযায়ী, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন আনতে চায় নির্বাচন কমিশন। কাগুজে ব্যালটের পরিবর্তে যন্ত্রের মাধ্যমে ভোট নেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। যন্ত্র তৈরির কাজও অনেকটা এগিয়েছে। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমের নতুন রূপ হলো ডিভিএম বা ডিজিটাল ভোটিং মেশিন। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের এই উদ্যোগের যোগসূত্র নেই।
বিএনপি ভোটযন্ত্রের মধ্যে ‘সরকারের ভোটারবিহীন নির্বাচন করার আরেকটি ডিজিটাল প্রতারণার’ দুরভিসন্ধি খুঁজে পেয়েছে। ভোটযন্ত্র চালুর বিরোধিতা করতে গিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যে ভাষায় নতুন সিইসি নুরুল হুদার সমালোচনা করেছেন, সেটি রুচির সীমা ও সৌজন্যের মাত্রা ছাড়িয়েছে বলে ধারণা করি। নতুন সিইসি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘উনি কে? বিসিএস ৭৩ ব্যাচের অফিসার। ৭৩ ব্যাচের ডাকনাম হচ্ছে তোফায়েল সার্ভিস। অর্থাৎ কোনো পরীক্ষা-টরীক্ষা নাই, জাস্ট সুপারিশ দিয়ে এটা করা হয়েছে। এঁরা চাকরিজীবনে কোনো যোগ্যতাই দেখাতে পারেন নাই। সেই ব্যক্তিকে সিইসি করা হয়েছে, তাদের (আওয়ামী লীগ) কথা অনুযায়ী চলবে বলে।’
সিইসি পদে নুরুল হুদা নিয়োগ পাওয়ার আগে বিএনপি তাঁর যোগ্যতা ও দক্ষতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন করেনি। বিএনপি সরকারই তাঁকে জেলা প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিল।
পরবর্তীকালে খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় সরকার তাঁকে বাধ্যতামূলক অবসর দিলে তিনি প্রশাসনিক আদালতে মামলা করে চাকরি ফিরে পান। এটাই তঁার বিরুদ্ধে বিএনপির প্রধান অভিযোগ। তাঁকে বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া যদি অন্যায় না হয়ে থাকে তাহলে বর্তমান সরকারের আমলে যত সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনুরূপ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, সেসবও সঠিক বলে মেনে নিতে হবে। জনপ্রশাসনকে ক্ষমতার স্বার্থে ব্যবহারের কাজটি দুই পক্ষই করেছে। কিন্তু কেউ আয়নায় নিজের মুখ দেখতে চায় না।
বিএনপি যদি নির্বাচন কমিশনকে চাপে রাখার কৌশল নিয়ে থাকে, তাহলেও তাদের এমন কিছু বলা ঠিক হবে না, যাতে সিইসি বা কমিশনের অন্য সদস্যদের কারও সঙ্গে বিএনপি নেতাদের মুখোমুখি বসা কঠিন হয়ে পড়ে। সিইসি নুরুল হুদা সরকারের অনুগত হবেন, না নিরপেক্ষ থাকবেন, সেটি দেখার জন্য বিএনপি অন্তত আগামী মার্চে অনুষ্ঠেয় ১৮টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারে। নুরুল হুদা বলেছেন, শপথ নেওয়ার পর থেকে তিনি সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ এবং বিএনপিসহ সব দলের আস্থা অর্জনে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাবেন। তাই হাওয়ায় ছড়ি না ঘুরিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রেই সিইসির নিরপেক্ষতা ও দক্ষতা পরীক্ষা করা বিএনপির জন্য সমীচীন হবে।
রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে কথাবার্তা না বলা ছিল রকিব কমিশনের বড় ভুল। সে কারণে নতুন কমিশনকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা করতে হবে, তাদের অভিযোগ–আপত্তির কথ শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। বিএনপির দলীয় অবস্থান দেখে মনে হয়েছিল, আপত্তি সত্ত্বেও তারা নতুন নির্বাচন কমিশনকে মেনে নিয়েছে এবং কমিশনের নিরপেক্ষতা যাচাই করতে আগ্রহী। কিন্তু রিজভীর কথায় চূড়ান্ত নাকচের মনোভাবই প্রকাশ পেল। বিএনপির নেতা যে ভোটযন্ত্রের মধ্যে দুরভিসন্ধি খুঁজে পেলেন, সেই কাজটি কিন্তু শুরু হয়েছিল অনেক আগেই।
প্রথম আলোয় সহকর্মী তানভীর সোহেলের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, শামসুল হুদা কমিশন ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট নেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল। আর রকিব কমিশন চালু করতে চেয়েছিল ডিভিএম পদ্ধতি, যা আগেরটির চেয়ে বেশি নির্ভরযোগ্য। এখানে বায়োমেট্রিক (আঙুলের ছাপ) পদ্ধতিতে ভোটারের পরিচয় নিশ্চিত করা হবে। প্রথমে একজন ভোটার ওই যন্ত্রে আঙুলের ছাপ দেবেন। জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) ডেটাবেইসের সঙ্গে ভোটারের আঙুলের ছাপ মিলিয়ে তাঁর পরিচয় নিশ্চিত করা হবে। আঙুলের ছাপ মিললে ভোটার ভোট দিতে পারবেন। ওই ভোটার একটি ভোট দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বয়ংক্রিয়ভাবে যন্ত্রটি বন্ধ (লক) হয়ে যাবে। এরপর ওই ভোটার আর কোনোভাবেই আরেকটি ভোট দিতে পারবেন না। তা ছাড়া ডিভিএমে স্মার্ট কার্ড প্রবেশ করিয়েও ভোটারের পরিচয় শনাক্ত করার ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। নির্ধারিত ভোটার ভোটকেন্দ্রে না গেলে বা কেন্দ্র দখল করে কোনো ভোটারের ভোট অন্য কারও পক্ষে দেওয়ার সুযোগ থাকবে না।’
এটাই যদি প্রকৃত অবস্থা হয়, তাহলে রিজভী সাহেবরা ভয় পাচ্ছেন কেন? তঁারা নির্বাচনে ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে যে কারচুপির আশঙ্কা করছেন, ভোটযন্ত্র তার বিপরীতে রক্ষাকবচ হতে পারে। সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেনও বলেছেন, যন্ত্রে আগে থেকে কারসাজি করার কোনো সুযোগ নেই। একটি ভোটের জন্য একবারই প্রোগ্রামিং (ওটিপি) করা হয়। ভোট শুরুর আগে কোনো যন্ত্রে কারসাজি করা হলে সেটা তো আর কাজই করবে না। একেকটি যন্ত্র তৈরিতে তখন ব্যয় ধরা হয়েছিল সম্ভবত ২৪ হাজার টাকা, যা দিয়ে তিনটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন করা যেত। ফলে ব্যালট ছাপানো, কালি, কলম, ব্যালট বাক্স কেনার খরচ বাঁচত। সময় তো বাঁচতই। তিনি বলেন, যন্ত্রে কাগজের ব্যবহার রাখা যেতে পারে। এই প্রক্রিয়াকে ভিভিপিএটি বা ভোটার ভেরিফিকেশন পেপার অডিট ট্রেইল বলা হয়। এতে অভিযোগ উঠলে মেশিন থেকে ভোটের তথ্য নেওয়া যাবে।
শামসুল হুদা কমিশনের আমলে ২০১০ সালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে একটি ওয়ার্ডে প্রথমবারের মতো ইভিএম ব্যবহার করা হয়। ওই কমিশন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৯টি ওয়ার্ডে ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সব ওয়ার্ডে ইভিএম ব্যবহার করে। সদ্য বিদায়ী রকিব কমিশন কয়েকটি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পরীক্ষামূলকভাবে ইভিএম ব্যবহার করে। গত মঙ্গলবার বিদায় নেওয়া নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ বলেন, ডিভিএমে ভোট নেওয়ার বিষয়টি এখন কারিগরি কমিটির মতামতের অপেক্ষায় আছে। তাঁরা কিছু কাজ এগিয়ে রেখেছেন। এই মেশিন নিয়ে যাতে কোনো বিতর্কের সুযোগ না থাকে, সে জন্য কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া যায় তা কমিটি দেখবে। নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. আবদুল্লাহর মতে, ডিভিএম এমন একটি যন্ত্র, সেখানে কারচুপির কোনো সুযোগ থাকবে না। ভোটের নিরাপত্তা শতভাগ নিশ্চিত হবে।
রুহুল কবির রিজভী যান্ত্রিক পদ্ধতিতে ভোট দেওয়ার বিপক্ষে যে যুক্তি দিয়েছেন, সেটি যেমন দল হিসেবে বিএনপির জন্য লজ্জাকর, তেমনি বাংলাদেশের জন্যও। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে এখনো অনেক মানুষ নিরক্ষর। এত টেকনিক্যাল বিষয় বোঝা তাদের জন্য কষ্টসাধ্য। এই পদ্ধতিতে ই-ভোটিংয়ের সার্ভার সরকার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে। সুতরাং, সরকারের জন্য ভোট ম্যানিপুলেট (কারসাজি) করা খুবই সহজ হবে।’ (প্রথম আলো, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭)।
বাংলাদেশে এখনো অনেক মানুষ নিরক্ষর থাকার দায় রাজনীতিক হিসেবে তিনি বা দল হিসেবে বিএনপি এড়াতে পারে না। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে ৪৬ বছর। এর মধ্যে বিএনপি তিনবারে ক্ষমতায় ছিল ১৬ বছর (প্রথমবার ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর থেকে ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ, দ্বিতীয়বার ১৯৯১ সালের ১৯ মার্চ থেকে ১৯৯৬ সালের ৩০ মার্চ এবং তৃতীয়বার ২০০১ সালের ১০ অক্টোবর থেকে ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর)। বিপুলসংখ্যক মানুষের নিরক্ষতা দূর করতে তঁারা এই দীর্ঘ সময়ে কী করেছেন, সেটি জানার অধিকার নিশ্চয়ই জনগণের আছে। দ্বিতীয়ত, বিএনপি নেতা যেই যুক্তি দিচ্ছেন, সেই যুক্তিতে নিরক্ষর মানুষকে পরিচয়পত্রও দেওয়া যায় না। যারা পড়তে পারবেন না তাঁরা কী করে নিজের পরিচয়পত্র বুঝে নেবেন? পাকিস্তানের প্রথম সামরিক শাসক আইয়ুব খানও এই উদ্ভট যুক্তি দেখিয়ে মৌলিক গণতন্ত্র বা বেসিক ডেমোক্রেসি চালু করেছিলেন।
স্বাধীনতার এত বছর পরও যে দেশের ৪০ শতাংশ কিংবা তার চেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ নিরক্ষর, এই লজ্জা যারা নিরক্ষর তাঁদের নয়। বরং যঁারা অক্ষরজ্ঞানসম্পন্ন হয়ে তঁাদের নামে রাজনীতি করছেন, যাঁরা বর্তমানে বা অতীতে দেশ শাসন করেছেন, তাঁদের সবার জন্য এটি লজ্জার।
ভোটযন্ত্র ব্যবহারের বিষয়ে বিরোধী দলের সবাই যে রিজভীর সঙ্গে একমত, তা বলা যাবে না। লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান অলি আহমদ বলেছেন, ইভিএম পদ্ধতির অনেক ত্রুটি আছে। ত্রুটিগুলো দূর করে ব্যবহার করা যেতে পারে। ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ নেজামী বলেছেন, এ পদ্ধতিতে নির্বাচন হতে পারে। আর ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব ইউনুছ আহমাদ বলেছেন, ‘ইভিএম বিষয়টি ভালো। তবে এখানে চাতুরতার সুযোগ আছে। এ জন্য এ পদ্ধতিকে অ-বিতর্কিত বলা যায় না।’
ইসলািম দলগুলোও যখন যন্ত্রনির্ভর ভোট পদ্ধতিকে গ্রহণ করতে রাজি তখন ‘আধুনিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার দাবিদার’ বিএনপির নেতারা কেন গররাজি, সেটি বুঝতে অক্ষম। মেশিনের দোষ না দেখে, সেই মেশিনটি যিনি বা যাঁরা পরিচালনা করবেন, তঁাদের ব্যাপারে সজাগ থাকুন।
সোহরাব হাসান: কবি, সাংবাদিক।
sohrabhassan55@gmail.com