হোম » এক নজরে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির রোল অব অনার

এক নজরে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির রোল অব অনার

ঢাকা অফিস- Sunday, June 18th, 2017

চলতি মাসের ১ তারিখ বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির অষ্টম আসরের। আজ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের ফাইনাল লড়াই দিয়ে এই আসরের সমাপ্তি হল। মর্যাদার এ আসরে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপার স্বাদ পায় সরফরাজ আহমেদের পাকিস্তান।

আইসিসির মিনি বিশ্বকাপ খ্যাত এই টুর্নামেন্টের আগে আরও সাতটি আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। লন্ডনের ওভালে আজ ভারত-পাকিস্তান লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে অষ্টম আসরের বিজয়ী দল পেল ক্রিকেট বিশ্ব।

এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আট আসরের রোল অব অনার রাইজিংবিডি’র পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল

প্রথম আসর : ১৯৯৮ সালে প্রথম আসর তথা আইসিসির নকআউট ট্রফি মাঠে গড়ায় বাংলাদেশের মাটিতে। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪ উইকেটে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সেদিনকার ফাইনাল ম্যাচে দর্শক উপস্থিত ছিল ৪০ হাজার। যা এখন পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সর্বোচ্চ দর্শকের রেকর্ড।

দ্বিতীয় আসর : ২০০০ সালে একই নামে মাঠে গড়ায় ‘মিনি বিশ্বকাপ’। সেবার সবদলকে আতিথ্য দেয় কেনিয়া। নাইরোবির জিমখানা ক্লাব গ্রাউন্ডে ভারতকে ৪ উইকেটে হারায় নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় আসরের ফাইনালে দর্শক ছিল ৭ হাজার।

তৃতীয় আসর : ২০০২ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নামে মাঠে গড়ায় শ্রীলঙ্কার মাটিতে। কিন্তু বৃষ্টির কারণে ফাইনাল ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়। ফলে ভারত ও স্বাগতিক শ্রীলংকাকে যুগ্ম-চ্যাম্পিয়ন করা হয়। কলম্বোর আর. প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে দর্শক উপস্থিত ছিল ৩৪ হাজার ৮৩২ জন।

চতুর্থ আসর : ২০০৪ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি মাঠে গড়ায় ইংল্যান্ড এন্ড ওয়ালসে। লন্ডনের ওভালে অনুষ্ঠিত ফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে ২ উইকেটে হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেদিন দর্শক উপস্থিত ছিল ১৮ হাজার ৬০০ জন।

পঞ্চম আসর : ২০০৬ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকে আতিথ্য দেয় উপমহাদেশের পরাশক্তি ভারত। ফাইনালে বৃষ্টি আইনে অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটের বড় জয় পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। মুম্বাইয়ের ব্রাবোর্ন স্টেডিয়ামে সেদিন দর্শক উপস্থিত ছিল ২৬ হাজার। সেবারই সবশেষ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অংশ নেয় বাংলাদেশ।

ষষ্ঠ আসর : ২০০৯ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক হয় দক্ষিণ আফ্রিকা। ফাইনাল ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় অস্ট্রেলিয়া। সেঞ্চুরিয়নের সুপারস্পোর্টস পার্ক স্টেডিয়ামে দর্শক উপস্থিত ছিল ২২ হাজার ৪৫৬ জন।

সপ্তম আসর : ২০১৩ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক ছিল ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস। ফাইনালে স্বাগতিকদের ৫ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। এজবাস্টনের বার্মিংহামে সেদিন দর্শক ছিল ২৪ হাজার ৮৬৭ জন।

অষ্টম আসর : ২০১৭ সালে সবশেষ এবারের আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আয়োজকও ছিল ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস। মর্যাদার ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে ১৮০ রানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় পাকিস্তান। লন্ডনের ওভালে আজকের ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়।