উত্তর প্রদেশে হিন্দুত্বে ফেরানো হল এক ডজনেরও বেশি মুসলমানকে

ভারতের বিজেপি শাসিত উত্তর প্রদেশের ফৈজাবাদে এক ডজনেরও বেশি মানুষ মুসলিম ধর্ম ত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছেন। আজ (মঙ্গলবার) গণমাধ্যমে প্রকাশ, সকলকেই হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করার ধর্মীয় প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করানো হয়েছে। ‘ঘর ওয়াপসি’ (ঘরে ফেরা) করা মুসলিমদের আর্য সমাজ এবং আরএসএসের এক নেতার আয়োজনে বিশেষ পুজোর পরে তাদের হিন্দু ধর্মে ফেরানো হয়েছে।

আর্য সমাজ এবং আরএসএস নেতাদের দাবি, সকলেই স্বেচ্ছায় হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছেন। তাদের উপরে কোনো চাপ সৃষ্টি করা হয়নি।

একটি সূত্রে প্রকাশ, আম্বেদকরনগর জেলার আলাপুর এলাকার বাসিন্দা এক ডজনেরও বেশি মুসলিম হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছেন। ওই সকল লোকের হিন্দু নামও রাখা হয়েছে। কিন্তু নিরাপত্তার কারণে তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

আর্য সমাজ প্রধান হিমাংশু ত্রিপাঠির মতে, আর্য সমাজের প্রতিষ্ঠাতা মহর্ষি দয়ানন্দ সরস্বতীর পথ অনুসরণ করে কোনো লোভ, ভয় বা চাপ ছাড়াই এক ডজনের বেশি লোক পূর্ণ বৈদিক বিধিবিধানের সঙ্গে বিশেষ যজ্ঞ-পূজা করে পুনরায় বৈদিক হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছেন। বৈদিক অনুষ্ঠান কর্মসূচি আচার্য শরমমিত্র শর্মা সম্পন্ন করেছেন। অনুষ্ঠান শেষে মুসলিম থেকে হিন্দু হওয়া ওই পরিবার প্রসাদ গ্রহণ করেন।

আরএসএস নেতাদের দাবি, নট সমাজের সঙ্গে যুক্ত এসব লোকের পরিবার ২৫/৩০ বছর আগে হিন্দু ছিলেন। এবার তারা পুনরায় হিন্দু ধর্ম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

‘ঘর ওয়াপসি’ বা ঘরে ফেরা কিছু হিন্দু সংগঠনের দ্বারা চালানো এক ধর্মান্তরকরণ অভিযান কর্মসূচি। এতে অহিন্দুদের ধর্ম পরিবর্তন করিয়ে হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে আনা হয়। সংশ্লিষ্ট হিন্দু সংগঠনের দাবি, সনাতন হিন্দু ধর্ম থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যারা মুসলিম অথবা খ্রিস্টান হয়েছেন তাদের পুনরায় হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে আনার একটি প্রক্রিয়া হল ঘর ওয়াপসি।

২০১৪ সালে উত্তর প্রদেশের আগ্রায় ৫৭ জন মুসলিমের ঘর ওয়াপসি করাকে কেন্দ্র করে সেসময় তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়। সংসদেও সেসময় বিরোধীরা ওই ঘটনার প্রতিবাদে সোচ্চার হন।#

পার্সটুডে

You Might Also Like