‘উগ্র যৌনাচারে’ অস্বীকৃতি, নারীকে পুড়িয়ে হত্যা

উগ্র যৌনাচারে অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানানোয় এক নারীকে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করেছে আইএস জঙ্গিরা। যুদ্ধ পরিস্থিতিতে যৌন সহিংসতা বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জয়নব বাঙ্গুরা এ তথ্য জানিয়েছেন।
জাতিসংঘ আরও জানতে পেরেছে, অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ে থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের নারীদের সঙ্গে নির্মম পাশবিক অপরাধ চালাচ্ছে আইএস। দাস বাজারে আইএস নেতা আর সেনাদের কাছে মেয়েদের নগ্ন করে বিক্রি করা হচ্ছে। সংখ্যালঘু ইয়াজিদি সম্প্রদায়েরর অল্পবয়সী মেয়েদের টার্গেট করছে তারা। ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরিয়ার রাকা শহরে গড়ে উঠেছে এ দাস বাজার। এখানে অনেক মেয়েদের নগ্ন করে ফেলা হয়। সতীত্ব পরীক্ষা দিতে বাধ্য করা হয়। এরপর তোলা হয় নিলামে। জয়নব বাঙ্গুরা বলেন, আইএস জঙ্গিরা এসব মেয়েদের নিয়ে ধর্ষণ করে, যৌনদাসী বানিয়ে রাখে ও পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করে। এছাড়াও তাদেরকে নির্মম ও উগ্র যৌনাচারে বাধ্য করা হয়।
জয়নব জানান, আমরা ২০ বছরের একটি মেয়ের ঘটনা শুনেছি যে উগ্র যৌনাচারে অস্বীকৃতি জানানোয় তাকে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। জাতিসংঘের এ বিশেষ প্রতিনিধি আরও বলেন, যাদেরকে সবথেকে সুন্দরী বলে মনে করা হয় তাদেরকে পাঠানো হয় আইএসের স্বঘোষিত রাজধানী রাকাতে। প্রথমে দলের নেতাদের কাছে, পরে আমির এবং সবশেষে সেনাদের কাছে পাঠানো হয় ভাগ্যবিড়ম্বিত এসব মেয়েদের। প্রতি ক্রেতা সাধারণতা তিন থেকে চার জন মেয়েকে নেয়। তাদেরকে কয়েক মাস রেখে নির্যাতন করে। এরপর তাদের ওপর থেকে মন উঠে গেলে আবারও বিক্রি করে দেয়। জয়নব জানান, আমরা একটি মেয়ের কাছে শুনেছি তাকে ২২ বার বিক্রি করা হয়েছে।

You Might Also Like