ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে ঈদুল আজহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণমুখী কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়ে বিভেদ ও বৈষম্যহীন সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহবান জানিয়েছেন।
প্রতিবারের মতো এবারো গণভবনে নানা শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ আহবান জানান। সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রথমে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এরপর দলের উপদেষ্টা পরিষদ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, আমন্ত্রিত অতিথি এবং বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদ-উল আজহার শুভেচ্ছা বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেছেন, মহান আল্লাহর উদ্দেশে প্রিয়বস্তুকে উৎসর্গের মাধ্যমে তার সন্তুষ্টি লাভের যে অনুপম দৃষ্টান্ত হযরত ইব্রাহিম (আ.) স্থাপন করে গেছেন, তা বিশ্ববাসীর কাছে চিরকাল অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় হয়ে থাকবে।

এদিকে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশকে এবং নিজেকে বাঁচাতে হবে। এই অত্যাচারীদের থেকে দেশকে বাঁচানোই এখন কর্তব্য। সবাই ঐক্যবদ্ধ হলে আমরা বিজয়ী হব। দেশের মানুষের বিজয় হবে। দেশে সুদিন আসবে।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) দুপুর ১২টার দিকে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়কালে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। খালেদা জিয়া বলেন, “গুম-খুন থেকে মানুষ বাঁচতে চায়। র‍্যাব-পুলিশের অত্যাচার এখনো বন্ধ হয়নি। র‍্যাব-পুলিশ যদি টাকার বিনিময়ে খুন করে, আসামি ছেড়ে দেয় তাহলে দেশের কী হবে? মানুষ কোথায় যাবে।”

আওয়ামী লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, “দেশকে ধ্বংস করার জন্য কি এরা বসেছে? এদের হাতে দেশ নিরাপদ নয়।”
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তারেক রহমানের ব্যাপারে তিনি বলেন, “সে এখনো চলতে পারে না, অসুবিধা হয়। আমার সঙ্গে যারা (মক্কায়) গিয়েছিলেন তারাও দেখেছেন ওর অবস্থা কী? তারেক কবে আসবে বলা মুশকিল। চিকিৎসা শেষ না হলে আসতে পারবে না। চিকিৎসক ছাড়বে না। ওকে সার্বক্ষণিক চিকিৎসকের পরামর্শে থাকতে হচ্ছে বলে তিনি জানান।

You Might Also Like