ইহুদি নারীর সাথে মুসলিমের প্রেম কাহিনী নিয়ে মিশরে বিতর্ক

পবিত্র রমজান মাসে মিশরীয় এক ইহুদি নারীর সাথে মিশরীয় এক মুসলিম সেনা কর্মকর্তার প্রেম কাহিনীমূলক এক টিভি সিরিজ প্রচারিত হচ্ছে মিশরীয় টেলিভিশনে।
হারেত এল-ইয়াহুড বা দ্য জিউইশ কুয়ার্টার নামে এই টিভি সিরিজটির পরিচালক আহমেদ কারদাউস।
প্রচার শুরু হওয়ার পর থেকে মিশরে এটা নিয়ে বেশ বিতর্ক চলছে। কেননা সিরিজটাতে ইহুদিদেরকে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখানো হচ্ছে। এটাই তর্ক-বিতর্কের মূল।
আর এই বিতর্কটা এমন একটা অঞ্চলে যেখানে বহু লোক আরব-ইসরাইল দ্বন্দ্ব ও ফিলিস্তিনিদের দুর্ভোগের জন্য ইহুদিদেরকেই দোষারোপ করে।
মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে পবিত্র রমজান মাস হচ্ছে নাটক-সিনেমার জন্য মোক্ষম সময়। আর এই রমজানে টিভি সিরিজটার রমরমা অবস্থা।
প্রেম কাহিনীতে দেখানো হয় একজন খলনায়ক সিনেমার প্রধান চরিত্র ভদ্র মহিলার প্রেমিককে অপহরণ করার চেষ্টা করছে। পতিতাবৃত্তি, রাজনীতি আর একে অপরের বিরুদ্ধে চক্রান্ত এই সিরিজটার উপজীব্য।
তবে এর মধ্যে একটা চমকও আছে। আর সেটা হচ্ছে গল্পের নায়িকা লায়লা নামে এক সুন্দরী ইহুদি মিশরীয় নারী।
সিরিজটার পরিচালক মোহাম্মদ এল-আদল বলেন, ‘লোকজন আমাদেরকে বলছে কেন তোমরা ইহুদিদেরকে নিয়ে সিরিজ তৈরি করবে ? এটা নিষিদ্ধ। সিনেমাতে তাদেরকে দেখানো ঠিক নয়। তাদেরকে নিয়ে কথা বলাও ঠিক নয়।’
টিভি সিরিজটা অনেক কারণেই বিতর্কিত। প্রথমত, মিশরের ইসরাইলি দূতাবাস এটার প্রশংসা করেছে। এরপর প্রথম সপ্তাহে কয়েক পর্ব প্রচারিত হওয়ার পর ইসরাইলের পক্ষ থেকে বলা হয়, সিরিজটা ইসরাইলকে মিশরের ‘নৃশংস শত্রু’ হিসেবে উপস্থাপন করেছে।
পরিচালক মোহাম্মদ আল-আদল দেখানোর চেষ্টা করেছেন ‘কিছু ইহুদি আসলেই ভালো।’
ইহুদিবাদ ও ইহুদিদের জন্য একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র সৃষ্টির জন্য প্রতিষ্ঠিত জায়নবাদের মধ্যে পার্থক্য করতে বেশ সতর্ক থেকেছেন। এই শোতে আদল দেখানোর চেষ্টা করেছেন, গল্পের নায়িকা লায়লা কোনো জায়নবাদী নয়।
পরিচালক আদল বলেন, ‘মিশরে আপনি এমন অনেক ভাল ইহুদি খুঁজে পাবেন, যারা মনেপ্রাণে মিশরীয়। তারা মিশরকে খুব ভালবাসে। আবার একই পরিবারের মধ্যে লায়লার ভাইয়ের মতো জায়নবাদী লোকও আপনি খুঁজে পাবেন।’
সিরিজে লায়নার ভাই একজন জায়নবাদী এবং একজন প্রমাণিত খলনায়ক।
স্থানীয় এক আলোচনা সভায় মিশরীয় লেখক এটাকে অপরাধমূলক বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি প্রশ্ন করছেন, একজন ইহুদি মেয়ের সাথে কিভাবে একজন মুসলিম সেনা কর্মকর্তার প্রেম হতে পারে। আর সিরিজটাতে একজন মুসলিম মেয়েকে খারাপ, অনিরাপদ এবং একজন প্রতারকের মেয়ে হিসেবে দেখানো হয়েছে।
সিরিজটার লেখক মেদাত আল আদল বলেন, তিনি শুধু মানুষের বিনোদনের জন্য এই টিভি শোটি তৈরি করেছেন আর এই শোটি এই সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় শো। রাজনীতি নিয়ে আলোচনা পরে হতে পারে।

You Might Also Like